শিরোনাম
শিবালয়ে নিষিদ্ধ সময়ে যমুনার চরে দিনব্যাপী ইলিশের হাট দৌলতদিয়ার যৌনপল্লিতে যৌনকর্মীর রক্তাক্ত লাশ উদ্ধার- গোয়ালন্দে কৃষকদের বাধা উপেক্ষা করে প্রভাবশালী মহল মরাপদ্মায় ড্রেজার দিয়ে অবাধে মাটি উত্তোলন করছে দৌলতদিয়া ইউনিয়ন যুবলীগ সাধারণ সম্পাদক বহিস্কার গোয়ালন্দে ছাত্রলীগ নেতাকে মারধরের অভিযোগে উপজেলা সেচ্ছাসেবক লীগ সভাপতি আটক- গোয়ালন্দে ৭০০ গ্রাম গাঁজাসহ দুই জন আটক গোয়ালন্দ প্রবাসী ফোরামের উদ্যোগে অসচ্ছল মেধাবী শিক্ষার্থীদের মাঝে শিক্ষাবৃত্তি প্রদান রাজবাড়ীতে শেখ হাসিনার নির্দেশে মুক্তিযোদ্ধাদের মাঝে সম্মানি বিতরণ অবৈধ ড্রেজার ব্যবসায়ীকে জরিমানা, ৭টি ড্রেজার জব্দ গোয়ালন্দে অসহায় মানুষের মাঝে খাবার বিতরণ এমপি কন্যা চৈতীর উদ্যোগে

অসহায় মা ও শিশুকে সাহায্যের হাত বাড়িয়ে দিলেন ওসি ফিরোজ কবির

রনি মন্ডল | রাজবাড়ী টেলিগ্রাফ / ১০৮ বার পড়া হয়েছে
সর্বশেষ আপডেট : শনিবার, ২২ মে, ২০২১

0Shares

সাইফুল ইসলাম, মানিকগঞ্জ প্রতিনিধি, ২১ মে
অভাবের তাড়নায় প্রায় এক মাস ধরে পানিতে চালের গুঁড়া মিশিয়ে সেদ্ধ করে, কখনো ভাতের মার , আবার কখনো পানির সঙ্গে আটা কিংবা ময়দা মিশিয়ে শিশু মোহাম্মদকে খাওয়াচ্ছিলেন অসহায় মা আমেনা বেগম। অবশেষে মানিকগঞ্জের পুলিশ সুপারের নির্দেশনায় সেই অসহায় মায়ের পাশে দাঁড়ালেন শিবালয় থানার অফিসার ইনচার্জ মোঃ ফিরোজ কবির। অসহায় মায়ের জন্য খাবার ও শিশু মোহাম্মদের জন্য দুধ কিনতে আর্থিক সহায়তা করেন ওসি ফিরোজ কবির। শিশু মোহাম্মদ এখন দুধ খেতে পারছে। হাসি ফুটেছে আমেনা বেগমের মুখে।
আমেনা বেগম শিবালয় উপজেলার উথুলী ইউনিয়নের ছোট ব্রাক্ষণকুল গ্রামের মৃত আবুল কাশেমের মেয়ে। স্বামী মারা যাওয়ার পর এই এলাকায় থাকেন তিনি।
গত বৃহস্পতিবার (২০ মে) সকালে মানিকগঞ্জের পুলিশ সুপার রিফাত রহমান শামীমের নির্দেশে শিবালয় থানায় ডেকে এনে আমেনা বেগমকে আর্থিক সহায়তা করেন তিনি। এসময় উপস্থিত ছিলেন তদন্ত ওসি আশীষ শ্যানাল।
শিশু মোহাম্মদের মা আমেনা বেগম বলেন, ‘অভাবের তাড়নায় গত ১ মাস বাচ্চার মুখে দুধ দিতে পারিনি। চালের গুঁড়া, আটা, ভাতের মার, ময়দা পানিতে মিশিয়ে খাইয়েছি। কেউ খোঁজ নেয়নি । ওসি স্যার আমার বাচ্চার জন্য দুধ কিনে দিয়েছেন। আমার স্বামী মারা যাওয়ার পর সেই বাড়ি থেকে আমাকে তারিয়ে দিয়েছেন। আমি এখন খুব খুশি। এখন আমি আমার বাবার বাড়ির এলাকায় বোনের বাড়িতে থাকি। আমার কিছু চাওয়ার নেই। বাচ্চারা ভালো থাকলেই আমি ভালো থাকবো। যারা আমাকে সহযোগিতা করেছেন সবাইকে ধন্যবাদ জানাচ্ছি’।
শিবালয় থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মোঃ ফিরোজ কবির বলেন, এসপি স্যারের নির্দেশে অসহায় আমেনা বেগমকে অর্থ ও খাবারের ব্যবস্থা করে দেওয়া হয়েছে। তার শিশু বাচ্চার জন্য দুধ কিনতে আর্থিক সহায়তা করা হয়েছে। তার মৃত স্বামীর বাড়ির ওয়ারিশ বুঝে পেতে তাকে আইনি সহায়তা করা হবে।

Facebook Comments


এ জাতীয় আরো খবর
NayaTest.jpg