শিরোনাম
সরকারের মহাপ্রকল্প থাকলেও পদ্মায় চলছে অবৈধ বালু উত্তোলন। অফিস ফাঁকি দিয়ে নারী নিয়ে স্পা সেন্টারে জেলা রেজিস্ট্রার! মানব পাচার মামলা: দুই সপ্তাহেও গ্রেফতার হয়নি আসামীরা মানিকগঞ্জ জেলা প্রেসক্লাবের দ্বি-বার্ষিক নির্বাচন: সভাপতি আমিনুল, সম্পাদক নুরুজ্জামান গোয়ালন্দে ৪ কেজি গাঁজাসহ মাদক ব্যবসায়ী আটক কাজী ছালামের বিরুদ্ধে বাল্যবিয়ে পড়ানোসহ নানা অভিযোগ গোয়ালন্দে পানিতে ডুবে নির্মাণ শ্রমিকের মৃত্যু গোয়ালন্দে বিদেশে পাঠানোর প্রলোভনে বাগানে নিয়ে এক নারীকে গণধর্ষনের অভিযোগ কৃষকের বাড়ি নির্মাণে আ.লীগ নেতার চাঁদা দাবি, থানায় অভিযোগ ছাত্রীদের উত্ত্যক্তের প্রতিবাদ করায় শিক্ষককে পেটালো সাবেক ২ ছাত্র

গোয়ালন্দ গণহত্যা দিবস আজ

ষ্টাফ রিপোর্টার | রাজবাড়ী টেলিগ্রাফ / ২৪৮ বার পড়া হয়েছে
সর্বশেষ আপডেট : বুধবার, ২১ এপ্রিল, ২০২১

0Shares

গণেশ পালঃ
আজ ২১ এপ্রিল গোয়ালন্দ গণহত্যা দিবস। ১৯৭১ সালের এই দিনে পাকিস্তান হানাদার বাহিনী নদীবন্দরখ্যাত পদ্মাপারের গোয়ালন্দ আক্রমন করে। মানিকগঞ্জের আরিচাঘাট থেকে মেশিনগান, মর্টারসহ ভারি যুদ্ধাস্ত্র বোঝাই একটি গানবোট ও একটি কে-টাইপ ফেরিতে নদীপার হয়ে হানাদাররা প্রথম এসে নামে গোয়ালন্দের উজানচর ইউনিয়নের কামারডাঙ্গি নামক এলাকায়। সেখানে স্থানীয় জনতার সহায়তায় ইপিআর, আনছার ও মুক্তিবাহিনীর একটি দল হালকা অস্ত্রসস্ত্র নিয়ে তারা প্রতিরোধ সৃষ্টি করেন। কিন্তু পাকবাহিনীর ভারি অস্ত্রের মুখে কিছুক্ষণের মধ্যেই প্রতিরোধ ভেঙ্গে যায়। এসময় হানাদারের বুলেটে প্রথম শহীদ হন আনছার কমান্ডার মহিউদ্দিন ফকির। পরে পাকবাহিনী দ্রæত এগিয়ে এসে স্থানীয় বালিয়াডাঙ্গা গ্রাম ঘিরে ফেলে। সেখানে বৃষ্টির মতো গুলি চালিয়ে তারা গণহত্যাযজ্ঞ চালায়। পাশাপাশি নিরীহ গ্রামবাসীর ঘরবাড়িতে তারা আগুন জ্বালিয়ে দেয়। সেখানে হানাদারের বুলেটে শহীদ হন বালিয়াডাঙ্গা গ্রামের নারীসহ স্বাধীনতাকামী ২৪ জন মানুষ। তাঁরা হলেন, জিন্দার আলী মৃধা, নায়েব আলী বেপারি, মতিয়ার বেগম, জয়নদ্দিন ফকির, কদর আলী মোল্লা, হামেদ আলী শেখ, কানাই শেখ, ফুলবুরু বেগম, মোলায়েম সরদার, বুরুজান বিবি, কবি তোফাজ্জল হোসেন, আমজাদ হোসেন, মাধব বৈরাগী, আহাম্মদ আলী মন্ডল, খোদেজা বেগম, করিম মোল্লা, আমোদ আলী শেখ, কুরান শেখ, মোকসেদ আলী শেখ, নিশিকান্ত রায়, মাছেম শেখ, ধলাবুরু বেগম, আলেয়া খাতুন ও বাহেজ পাগলা। বালিয়াডাঙ্গা গ্রামে গণহত্যা শেষে ওইদিন দুপুরে পাকবাহিনীর ওই দল গোয়ালন্দ স্টিমারঘাট, ফেরিঘাটসহ গোয়ালন্দ বাজার আক্রমন করে। তারা স্থানীয় রাজাকারদের সহায়তায় বাজারের কয়েকশ দোকানপাট ও ব্যবসাপ্রতিষ্ঠনে লুটপাট চালিয়ে তাতে আগুন ধরিয়ে দেয়। সেই থেকে ২১ এপ্রিল গোয়ালন্দ গণহত্যা দিবস পালিত হয়ে আসছে।

শহীদ সন্তান ও গোয়ালন্দ উপজেলা আওয়ামী লীগের সহসভাপতি গোলজার হোসেন মৃধা বলেন, ‘উপজেলার বালিয়াডাঙ্গা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে নির্মিত চব্বিশ শহীদের নামফলক ছাড়া গোয়ালন্দে গণহত্যার আর কোন স্মৃতিচিহ্ন নেই। প্রতি বছর ২১ এপ্রিল শহীদ পরিবারের পক্ষ থেকে ওই নামফলকে ফুল দিয়ে আমরা শ্রদ্ধা জানাই। পাশাপাশি মিলাদ মাহফিল ও আলোচনা সভার আয়োজন করে থাকি। কিন্তু করোনা মহামারির কারণে গত বছররের ন্যায় এবারও আমরা দিবসটি পালনে কোন কর্মসূচি গ্রহণ করিনি।’

Facebook Comments


এ জাতীয় আরো খবর
NayaTest.jpg