শিরোনাম
এক ঘণ্টার জন্য গোয়ালন্দ উপজেলার ইউএনও হলেন বাবলী- শিবালয়ে নিষিদ্ধ সময়ে যমুনার চরে দিনব্যাপী ইলিশের হাট দৌলতদিয়ার যৌনপল্লিতে যৌনকর্মীর রক্তাক্ত লাশ উদ্ধার- গোয়ালন্দে কৃষকদের বাধা উপেক্ষা করে প্রভাবশালী মহল মরাপদ্মায় ড্রেজার দিয়ে অবাধে মাটি উত্তোলন করছে দৌলতদিয়া ইউনিয়ন যুবলীগ সাধারণ সম্পাদক বহিস্কার গোয়ালন্দে ছাত্রলীগ নেতাকে মারধরের অভিযোগে উপজেলা সেচ্ছাসেবক লীগ সভাপতি আটক- গোয়ালন্দে ৭০০ গ্রাম গাঁজাসহ দুই জন আটক গোয়ালন্দ প্রবাসী ফোরামের উদ্যোগে অসচ্ছল মেধাবী শিক্ষার্থীদের মাঝে শিক্ষাবৃত্তি প্রদান রাজবাড়ীতে শেখ হাসিনার নির্দেশে মুক্তিযোদ্ধাদের মাঝে সম্মানি বিতরণ অবৈধ ড্রেজার ব্যবসায়ীকে জরিমানা, ৭টি ড্রেজার জব্দ

মাদকসহ সাংবাদিক আটকের ঘটনার বিচার বিভাগীয় তদন্ত জরুরী : বিএমএসএফ

রনি মন্ডল | রাজবাড়ী টেলিগ্রাফ / ১২৭ বার পড়া হয়েছে
সর্বশেষ আপডেট : শুক্রবার, ১৬ এপ্রিল, ২০২১

0Shares

ঢাকা শুক্রবার ১৬ এপ্রিল ২০২১: লালমনিরহাটে মাদকসহ সাংবাদিক জাহাঙ্গীর শাহিন আটকের ঘটনার প্রকৃত সত্যতা ও রহস্য উৎঘাটনের জন্য বিচার বিভাগীয় তদন্তের দাবী করেছে বাংলাদেশ মফস্বল সাংবাদিক ফোরাম-বিএমএসএফ।
এদিকে আজ তাকে প্রাথমিক চিকিৎসা শেষে আদালতে আনা হলে তার জামিন মঞ্জুর করেন।

শুক্রবার বিকেলে বিএমএসএফের এক বিবৃতিতে সংগঠনের সভাপতি শহীদুল ইসলাম পাইলট ও সাধারণ সম্পাদক আহমেদ আবু জাফর বলেন, লালমনিরহাটে বিজিবি কর্তৃক সাংবাদিক শাহিনকে যেভাবে মারধরে আহত করে আটক দেখানো হয়েছে তা গ্রামের এক গরুচোরকে হার মানায়।

এদিকে শাহিনের আটকের ঘটনাটি সারাদেশের সাংবাদিকদের মাঝে বিরুপ প্রতিক্রিয়া সৃষ্টি হলে দুই শতাধিক মাদকসহ আটক ব্যবসায়ীর ছবি সংগ্রহ করে বিএমএসএফ। ছবিগুলোতে কয়েক কোটি টাকার ইয়াবা, ফেনসিডিল উদ্বার করলেও সেখানে কোন আসামিকে দড়ি বেঁধে রাখা হয়নি। যা একজন সাংবাদিককে আটকের পর তাকে বেদম মারপিট করে ফটোশেসন করা হয়েছে। পুরো ঘটনাটি গভীর চক্রান্ত, ষড়যন্ত্র যা গোটা দেশের সাংবাদিকদের ভাবমূর্তি ক্ষুন্ন করেছে এমনকি বিজিবির ইমেজও প্রশ্নবিদ্ধ করেছে। এরুপ পরিস্থিতি থেকে দুটি পেশাকে বাঁচাতে বিচার বিভাগীয় তদন্ত জরুরী।

উল্লেখ্য, শুক্রবার রাতে লালমনিরহাটের কুলাঘাটে এক বোতল ফেনসিডিলসহ দৈনিক জনকন্ঠ ও বাংলাদেশ সংবাদ সংস্থার লালমনিরহাট প্রতিনিধি জাহাঙ্গীর আলম শাহীনকে বিজিবি আটক করেন। আটকের পর সাংবাদিকের সাথে আচরনের বিষয়টি গোটা সাংবাদিক সমাজের বিবেককে নাড়া দিয়েছে। বিজিবি’র মতো বাহিনীর দ্বারা সাংবাদিক সমাজ এমন আচরন কখনোই আশা করেনা।

আটকের পর সাংবাদিককে দড়ি দিয়ে বেঁধে ফেলা বিষয়ে গভীর উদ্বেগ এবং সন্দেহ প্রকাশ করেছেন সাংবাদিক সংগঠনের নেতৃবৃন্দ। ধারনা করা হচ্ছে ষড়যন্ত্রমূলক ভাবে সাংবাদিককে ফাসানোঁ হয়েছে। দ্বৈতপেশার শাহীন আদিতমারী মহিষখোঁচা স্কুল অ্যান্ড কলেজের প্রভাষক হিসেবেও কর্মরত রয়েছেন।

Facebook Comments


এ জাতীয় আরো খবর
NayaTest.jpg