শিরোনাম
শিবালয়ে নিষিদ্ধ সময়ে যমুনার চরে দিনব্যাপী ইলিশের হাট দৌলতদিয়ার যৌনপল্লিতে যৌনকর্মীর রক্তাক্ত লাশ উদ্ধার- গোয়ালন্দে কৃষকদের বাধা উপেক্ষা করে প্রভাবশালী মহল মরাপদ্মায় ড্রেজার দিয়ে অবাধে মাটি উত্তোলন করছে দৌলতদিয়া ইউনিয়ন যুবলীগ সাধারণ সম্পাদক বহিস্কার গোয়ালন্দে ছাত্রলীগ নেতাকে মারধরের অভিযোগে উপজেলা সেচ্ছাসেবক লীগ সভাপতি আটক- গোয়ালন্দে ৭০০ গ্রাম গাঁজাসহ দুই জন আটক গোয়ালন্দ প্রবাসী ফোরামের উদ্যোগে অসচ্ছল মেধাবী শিক্ষার্থীদের মাঝে শিক্ষাবৃত্তি প্রদান রাজবাড়ীতে শেখ হাসিনার নির্দেশে মুক্তিযোদ্ধাদের মাঝে সম্মানি বিতরণ অবৈধ ড্রেজার ব্যবসায়ীকে জরিমানা, ৭টি ড্রেজার জব্দ গোয়ালন্দে অসহায় মানুষের মাঝে খাবার বিতরণ এমপি কন্যা চৈতীর উদ্যোগে

আগামী ১৪ এপ্রিল কঠোর লকডাউন ঘোষণা! ঘরমুখি মানুষের ভিড়ে করোনা সংক্রমণ ঝুঁকিতে স্বজনরা

রনি মন্ডল | রাজবাড়ী টেলিগ্রাফ / ১১১ বার পড়া হয়েছে
সর্বশেষ আপডেট : রবিবার, ১১ এপ্রিল, ২০২১

0Shares

জহুরুল ইসলাম হালিমঃ
করোনা সংক্রমণ বৃদ্ধি পাওয়াতে সরকার সারা দেশে এক সপ্তাহের জন্য লকডাউন ঘোষণা করেছে। সাত দিনের লকডাউনের পর পুনরায় আগামী ১৪ এপ্রিল কঠোর লকডাউন ঘোষণা আসার পর থেকে রাজধানী ছাড়তে শুরু করেছে অনেকে।

দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলগামী মানুষের ভিড়ে রাজবাড়ীর গোয়ালন্দ উপজেলার দৌলতদিয়া-পাটুরিয়া নৌপথের ফেরিতে গাদাগাদি অবস্থা। ফলে সংক্রমণের ঝুঁকি বাড়ছে।

রবিবার সকাল ৯টা থেকে ১২টা পর্যন্ত দৌলতদিয়া ঘাটে দেখা যায়, ব্যক্তিগত গাড়ির অনেক চাপ, সঙ্গে পণ্যবাহী ট্রাকও ছিল অনেক। ঘাটে যানবাহন পারাপার হচ্ছিল ৩, ৪ ও ৫ নম্বর ঘাট দিয়ে। তবে পাটুরিয়া থেকে যে কটি ফেরি দৌলতদিয়ায় এসে ভেড়ে, তাতে মানুষের গাদগাদি পরিস্থিতি দেখা যায়।

বেলা বাড়ার সঙ্গে মানুষের ভিড় আরও বাড়ে। এ সময় দেখা যার ফেরিতে ওঠানামায় মানা হচ্ছে না স্বাস্থ্যবিধি। অনেকের মুখে মাস্ক নেই, আবার মাস্ক থাকলেও কানের সঙ্গে বা হাতে ঝুলছে । এমন ঝুঁকিতে দক্ষিণাঞ্চলের অন্যতম প্রবেশদ্বার দৌলতদিয়া ঘাট দিয়ে হাজার হাজার মানুষ পারাপার হচ্ছে।

এ সময় কথা হয় বেসরকারি এক কর্মকর্তা মাসুদ রানার সাথে। তিনি বলছিলেন, বর্তমানে ঢাকার অবস্থা বেশি ভালো না তারপর সরকার আবার কঠোর ১৪ এপ্রিল থেকে লকডাউনে যাবে সব মিলিয়ে পরিস্থিতি কোন দিকে যায় কে জানে, তারপর অফিস বন্ধ হয়ে যাচ্ছে তাই আগেই ছুটি নিয়ে বাড়ি চলে যাচ্ছি।

ঢাকা থেকে আসা আরেক বেসরকারি এক কর্মকর্তা আছিফুর রহমান বলছিলেন, ঢাকায় থাকলে না খেয়ে মরতে হবে তাই ভাবলাম আগেভাগে বউ-বাচ্চা নিয়ে গ্রামের বাড়ি চলে যাই। তবে আসার সময় অনেক কষ্ট হয়েছে, বারবার ভেঙে ভেঙে এই পর্যন্ত আসতে হয়েছে। ফেরির ভেতরে যে গাদাগাদি করে এলাম এখন ভয়ে আছি করোনায় আক্রান্ত না হয়ে যাই।

বাংলাদেশ অভ্যন্তরীণ নৌপরিবহন সংস্থা (বিআইডব্লিউটিসি) দৌলতদিয়া কার্যালয়ের সহকারী মহা ব্যাবস্থাপক ফিরোজ শেখ বলেন, বর্তমান ঘাটে যানবাহনের চাপ বেড়েছে। এই সপ্তাহের শেষ দিক থেকে সরকার লকডাউনের ব্যাপারে আরও কঠোর হওয়ার ঘোষণা দেওয়ায় মানুষ ঢাকা ছাড়ছে।

দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলের বিভিন্ন জেলা থেকে ছেড়ে আসা ঢাকাগামী যেসব গাড়ি দৌলতদিয়া ঘাটে এসে পৌঁছেছে, তা দ্রুত ফেরিতে উঠে গেছে। অপরদিকে রাজধানী ছাড়তে শুরু করেছে মানুষ। যার ফলে ফেরিগুলোতে যাত্রীর চাপ বেড়েছে।

Facebook Comments


এ জাতীয় আরো খবর
NayaTest.jpg