শিরোনাম
গোয়ালন্দে কৃষকদের বাধা উপেক্ষা করে প্রভাবশালী মহল মরাপদ্মায় ড্রেজার দিয়ে অবাধে মাটি উত্তোলন করছে দৌলতদিয়া ইউনিয়ন যুবলীগ সাধারণ সম্পাদক বহিস্কার গোয়ালন্দে ছাত্রলীগ নেতাকে মারধরের অভিযোগে উপজেলা সেচ্ছাসেবক লীগ সভাপতি আটক- গোয়ালন্দে ৭০০ গ্রাম গাঁজাসহ দুই জন আটক গোয়ালন্দ প্রবাসী ফোরামের উদ্যোগে অসচ্ছল মেধাবী শিক্ষার্থীদের মাঝে শিক্ষাবৃত্তি প্রদান রাজবাড়ীতে শেখ হাসিনার নির্দেশে মুক্তিযোদ্ধাদের মাঝে সম্মানি বিতরণ অবৈধ ড্রেজার ব্যবসায়ীকে জরিমানা, ৭টি ড্রেজার জব্দ গোয়ালন্দে অসহায় মানুষের মাঝে খাবার বিতরণ এমপি কন্যা চৈতীর উদ্যোগে জাঁকজমকপূর্ণ আয়োজনের মাধ্যমে শেষ হলো রাজবাড়ী সার্কেল আয়োজিত ইসলামিক কুইজ প্রতিযোগিতা ২০২১ করোনা ভাইরাস থেকে পরিত্রাণের জন্য রাজবাড়ী সার্কেলের বিশেষ দোয়া মাহফিল

দৌলতদিয়ায় নিজের টাকায় বাড়ি-ঘর করেও সেই ঘরে থাকতে পারছেন না গৃহবধূ

রনি মন্ডল | রাজবাড়ী টেলিগ্রাফ / ১১০ বার পড়া হয়েছে
সর্বশেষ আপডেট : শুক্রবার, ৯ এপ্রিল, ২০২১

0Shares

রাজবাড়ীর গোয়ালন্দ উপজেলার দৌলতদিয়া হোসেন মন্ডলের পাড়ায় বউয়ের টাকায় ঘর-বাড়ি করার পর এখন সেই ঘরবাড়ি হতেই বউকে তাড়ানোর অভিযোগ উঠেছে স্বামী -শ্বাশুড়ির বিরুদ্ধে।

তারা ওই ঘরে গত ৭ দিন ধরে তালা লাগিয়ে রেখেছে। অসহায় স্ত্রী ঘুরছেন পাগলের মতো।

অভিযুক্ত স্বামী ওই গ্রামের মৃত মমিন ফকিরের ছোট ছেলে মিন্টু ফকির (২৮)।

মিন্টুর স্ত্রীর (২১) বাবার বাড়ি ঝিনাইদহ জেলায়। ছয় বছর আগে সে পাচারকারী চক্রের খপ্পরে পড়ে দৌলতদিয়া যৌনপল্লীতে আসে। তারপর হতেই মিন্টুর সাথে তার সম্পর্ক গড়ে ওঠে। গত বছরের জুন মাসে তাদের বিয়ে হয়। এর আগে মিন্টু বিগত ৫ বছরে তার স্ত্রীর কাছ থেকে অন্তত ২৫ লক্ষ টাকা হাতিয়ে নিয়ে নিজের বাড়ি-ঘর ও অন্যান্য সম্পদ করে।
সম্প্রতি ঠুনকো অভিযোগে মিন্টু তাকে গোপনে এক তরফা ভাবে তালাক দিয়ে ঘরে তালা ঝুলিয়ে দেয়।

সরেজমিন আলাপকালে অসহায় গৃহবধূ জানান, মিন্টু আমাকে বিয়ে করে বাড়ীতে নিয়ে যাবার কথা বলে টানা ৫ বছর আমার কাছ থেকে সব ধরনের সুযোগ সুবিধা নিয়েছে। আমিও সরল বিশ্বাসে একটা সংসার পাবার আশায় তার জন্য সবকিছু করি। জীবনের সমস্ত সঞ্চয় অন্তত ২৫ লাখ টাকা ধাপে ধাপে তার হাতে তুলে দেই।

সে আমার টাকায় তাদের খাল ভরাট করে এবং সেখানে পাকা করে ঘর তুলে। এরপর সে আমাকে পতিতালয় থেকে গ্রামে নিয়ে এসে সমাজের মাতব্বরদের উপস্থিতিতে বিয়ে করে। প্রায় দেড় বছর সংসার করার পর সে গর্ভবতী হলে বাচ্চা ডেলিটারী করাতে খুলনা মায়ের বাড়ীতে যান। সেখানে আদ্বীন ক্লিনিকে তার পেট থেকে মরা বাচ্চার জন্ম হয়। সে সময় তার কোন খোঁজ খবর নেয়নি মিন্টু ফকির ও তার পরিবারের কেউ। এক মাস মায়ের বাড়ী থাকার পর সে গত ২ এপ্রিল তার স্বামীর কাছে চলে আসে। বাড়ীতে আসার পর মিন্টু দুইদিন তার সাথে থাকার পর বলে আমি তোমার তালাক দিয়েছি এই বাড়ীতে তুমি থাকতে পারবে না এই বলে সোনালীকে ঘর থেকে ঘাড় ধাক্কা দিয়ে বাহিরে বের করে দিয়ে ঘরে তালা ঝুলিয়ে দেয়। বর্তমানে সে নিঃস্ব হয়ে পাগলের মতো খেয়ে না খেয়ে ঘুরে বেড়াচ্ছে আশে পাশে।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক কয়েকজন প্রতিবেশী বলেন, তারা জীবন ভরে খেটে একটি ঘর তুলতে পারেন না। অথচ মিন্টু কিছু দিনের মধ্যে গর্ত ভরাট করে পাকা ঘর বাড়ী করেছে ভেকু কিনেছে । ওর বাপ কয়েক বছর আগে টাকার অভাবে বিনা চিকিৎসায় মারা গেছে।এখন তাদের খুব ভালো অবস্থা। সামান্য দর্জির কাজ করে এটা সম্ভব না। মিন্টু যা কিছু করেছে ওর বউয়ের টাকায়।

এ প্রসঙ্গে গোয়ালন্দ ঘাট থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মোহাম্মদ আব্দুল্লাহ আল তায়াবীর জানান, এ বিষয়ে ওই গৃহবধূ একটি লিখিত অভিযোগ দিয়েছেন। তার স্বাভাবিক জীবন-যাপন তথা সংসার রক্ষার জন্য তদন্তপূর্বক আইনগত সহায়তা দেয়ার চেষ্টা করবো।

Facebook Comments


এ জাতীয় আরো খবর
NayaTest.jpg