শিরোনাম
গোয়ালন্দে কৃষকদের বাধা উপেক্ষা করে প্রভাবশালী মহল মরাপদ্মায় ড্রেজার দিয়ে অবাধে মাটি উত্তোলন করছে দৌলতদিয়া ইউনিয়ন যুবলীগ সাধারণ সম্পাদক বহিস্কার গোয়ালন্দে ছাত্রলীগ নেতাকে মারধরের অভিযোগে উপজেলা সেচ্ছাসেবক লীগ সভাপতি আটক- গোয়ালন্দে ৭০০ গ্রাম গাঁজাসহ দুই জন আটক গোয়ালন্দ প্রবাসী ফোরামের উদ্যোগে অসচ্ছল মেধাবী শিক্ষার্থীদের মাঝে শিক্ষাবৃত্তি প্রদান রাজবাড়ীতে শেখ হাসিনার নির্দেশে মুক্তিযোদ্ধাদের মাঝে সম্মানি বিতরণ অবৈধ ড্রেজার ব্যবসায়ীকে জরিমানা, ৭টি ড্রেজার জব্দ গোয়ালন্দে অসহায় মানুষের মাঝে খাবার বিতরণ এমপি কন্যা চৈতীর উদ্যোগে জাঁকজমকপূর্ণ আয়োজনের মাধ্যমে শেষ হলো রাজবাড়ী সার্কেল আয়োজিত ইসলামিক কুইজ প্রতিযোগিতা ২০২১ করোনা ভাইরাস থেকে পরিত্রাণের জন্য রাজবাড়ী সার্কেলের বিশেষ দোয়া মাহফিল

করোনা সংক্রমণ ঝুঁকিতে দৌলতদিয়া যৌনপল্লীর যৌনকর্মীরা

রনি মন্ডল | রাজবাড়ী টেলিগ্রাফ / ১৫৩ বার পড়া হয়েছে
সর্বশেষ আপডেট : বুধবার, ৭ এপ্রিল, ২০২১

0Shares

জহুরুল ইসলাম হালিম

রাজবাড়ীর গোয়ালন্দ উপজেলার দৌলতদিয়া যৌনপল্লীর যৌনকর্মীরা দেশ ব্যাপি করোনা সংক্রমণের ঊর্ধ্বমুখী প্রবনতায় রয়েছেন সর্বচ্চ স্বাস্থ্যঝুঁকিতে । সরকারি নির্দেশে সারা দেশে ৭দিনের ‘লকডাউন’ ঘোষণা করা হলেও এখানে তার কোনো প্রভাব পড়েনি। প্রত্যেক দিনই খদ্দের আসছেন। পেশাগত কারণে তাদের সময়ও দিচ্ছেন যৌনকর্মীরা।
সরকারি হিসাব মতে দৌলতদিয়া যৌনপল্লীতে ১ হাজার ৬০০ যৌনকর্মীর বসবাস। তবে বিভিন্ন এনজিও এ সংখ্যাকে ৫ হাজারের বেশি দাবি করে আসছে। এখন যে হারে মানুষ করোনা আক্রান্ত হচ্ছে, তাতে যৌনপল্লীর এমন ঘিঞ্জি পরিবেশে যেখানে অল্প জায়গায় অনেক মানুষের বসবাস যেখানে স্বাভাবিক সময়েই মানুষ স্বাস্থ্য ঝুঁকিতে থাকে। পল্লীর খদ্দেরদের কে কোথায় থেকে এসেছে, তার শারিরিক অবস্থা কি তা জানার কোন উপায় নেই এমন পরিস্থিতিতে পল্লীর অনেক বাসিন্দারাও এখনো অসচেতন। ফলে একবার এখানে সংক্রমণ ছড়ালে তা ভয়াবহ আকার ধারণ করবে বলে আশঙ্কা করা হচ্ছে।
যৌনকর্মীর অনেকেই জানান, আমরা পেটের দায়ে এখানে রয়েছি। প্রতিদিন বিভিন্ন অ ল থেকে খদ্দের আসা-যাওয়া করেন। পেশাগত কারণে তাদের ঘরে নিতে হয়, না বলার সুযোগ নেই। কিন্তু এদের মধ্যে কে করোনায় আক্রান্ত কে সুস্থ তা শনাক্তের কোনো উপায় পল্লীতে নেই। এজন্য আতঙ্কে রয়েছি। কিন্তু কাজ না করলে যে পেটেও ভাত যাবে না। গত বছর করোনায় পল্লী বন্ধ ছিল। কিন্তু এবার এখন পর্যন্ত পল্লীর স্বাভাবিক কার্যক্রম চলছে, লোকজন যদিও একটু কম। এত ঘিঞ্জি পরিবেশে স্বাস্থ্য বিধি মানা সম্ভব নয়। তবে আমরা ব্যক্তিগতভাবে কিছু সাবধানতা অবলম্বনের চেষ্টা করছি।
এ প্রসঙ্গে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো. আমিনুল ইসলাম বলেন, ‘এখন পর্যন্ত দৌলতদিয়া যৌনপল্লীর বিষয়ে সরকারি কোনো নির্দেশনা আসেনি। এজন্য আমরা কোনো পদক্ষেপ নিতে পারছি না। তবে সরকারি কোন সহায়তা এলে তাদেরকে দেয়া হবে।

Facebook Comments


এ জাতীয় আরো খবর
NayaTest.jpg