শিরোনাম

রাজবাড়ী পৌর নির্বাচনে মেয়র পদে আওয়ামীলীগের মনোনয়ন প্রত্যাশি ইঞ্জিনিয়ার আমজাদ হোসেন

নিউজ ডেস্ক | রাজবাড়ী টেলিগ্রাফ / ২১৩ বার পড়া হয়েছে
সর্বশেষ আপডেট : শুক্রবার, ১৩ নভেম্বর, ২০২০

সংবাদটি শেয়ার করুন
  • 247
    Shares

রাজবাড়ী জেলা আওয়ামীলীগের উপপ্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদক এবং কেন্দ্রীয় আওয়ামী সাংস্কৃতিক ফোরামের প্রেসিডিয়াম সদস্য ইঞ্জিনিয়ার আমজাদ হোসেন আসন্ন পৌরসভা নির্বাচনে মেয়র পদে আওয়ামীলীগের মনোনয়ন প্রত্যাশি।

এ বিষয়ে আমজদ হোসেনের সাথে রাজবাড়ী টেলিগ্রাফের একটি সাক্ষাৎকারে তিনি নির্বাচন সম্পর্কে ও মেয়র নির্বাচিত হলে রাজবাড়ী পৌরসভাকে নিয়ে তার পরিকল্পনা কথা জানান।

মেয়র নির্বাচন কেন আসা? রাজবাড়ী টেলিগ্রাফের এমন প্রশ্নের জবাবে আমজাদ হোসেন বলেন, ” আমি ছাত্রজীবন থেকেই রাজনীতির সাথে জড়িত। ছাত্র রাজনীতির শুরুই করি বঙ্গবন্ধুর আদর্শের রাজনীতির মাধ্যমে। আমি মনে করি রাজনীতি হলো সাধারণ মানুষকে সেবা করার একটা অন্যতম মাধ্যম। আমি সবসময়ই মানুষের পাশে থাকতে পছন্দ করি। দল-মত নির্বিশেষে যে কারো যে কোন বিপদে আপদে তাকে সাহায্যের জন্য এগিয়ে যাই। আমি আমার স্কুল জীবন থেকেই মানুষকে সাহায্য করে আনন্দ পাই। ”

তিনি এ বিষয়ে আরো বলেন, আমি এই করোনা মহামারির মধ্যে ব্যাক্তি গতভাবে দিনমজুর অসহায় মানুষের পাশে থাকার চেষ্টা করেছি। তাদের বাসায় গিয়ে খাবার পৌছে দিয়ে এসেছি। এছাড়া আপনারা জানেন, পদ্মাবিধৌত ছোট্ট জেলা রাজবাড়ী প্রতিবছরই বন্যার সময় পদ্মার ভাঙ্গনের সম্মুখীন হয়। আমি প্রতি বছরে বন্যাকবলিত অঞ্চলে গিয়ে সে যায়গাই মানুষ কে সাহায্যে সহযোগিতা করি। আর আমার এ সকল কাজকে ত্বরান্বিত করার জন্য। রাজবাড়ী পৌর এলাকার সর্বস্তরের জনগণের সাহায্যের জন্য আমি এবারের মেয়র নির্বাচন করতে চাই।” জননেত্রী শেখ হাসিনা সারাদেশ ব্যাপি যে উন্নয়ন করেছে তার অনেকাংশের ছোঁয়াই রাজবাড়ী পৌরবাসী পাই নাই। তাই, আমি চাই আওয়ামীলীগের সমর্থন নিয়ে এবারের মেয়র নির্বাচনে অংশগ্রহণ করে পৌরবাসীর ভোটে নির্বাচিত হয়ে শেখ হাসিনার উন্নয়নের সবটুকু দিয়ে তাদের সেবা করতে।”

রাজবাড়ী পৌরসভায় কি কি সমস্যা রয়েছে বলে মনে মরেন? এমন প্রশ্ন জিজ্ঞাসা করা হলে আমজাদ হোসেন রাজবাড়ী টেলিগ্রাফকে বলেন, ” রাজবাড়ী পৌরসভা প্রথম শ্রেণীর পৌরসভা হবার পরও পৌরসভার পানি নিষ্কাশন ব্যবস্থা ও বর্জ্য অপসারন ব্যবস্থা খুবই নাজুক। আমি প্রথমত এই দিকটাতে নজর দিব। আমি চাই না আমার পৌরসভার কোন নাগরিক জলাবদ্ধতা, দূর্গন্ধযুক্ত পরিবেশ কিংবা ডেঙ্গু,ম্যালেরিয়ার আক্রান্ত হোক। যেহেতু আমি একজন প্রকৌশলী সেহেতু এই ড্রেনেজ ব্যবস্থা ও বর্জ অপসারন ব্যবস্থাকে ঢেলে সাজানোর একটি পরিকল্পনা রয়েছে আমার। এছাড়া রাজবাড়ীতে দিন দিন জনসংখ্যা বাড়ছে। এই ক্রমবর্ধমান জনসংখ্যার চাপ সামাল দেওয়ার মতন অবকাঠামো দিক থেকে রাজবাড়ী পৌরসভা বেশ কিছু টা পিছিয়ে রয়েছে। রাজবাড়ী শহরে এখন বেশ যানজটের সৃষ্টি হয়। এর অন্যতম প্রধান কারন ইজিবাইক। আমি নির্বাচিত হলে রুট ভিত্তিক স্থান নির্ধারন করে এবং সুষ্ঠু পরিকল্পনার মাধ্যেমে এই যানজট নিরসন করবো। এছাড়া রাজবাড়ী বাজারে যতগুলো নতুন ভবন হয়েছে সেগুলোর পার্কিং ব্যবস্থাকে একটি নিয়মের মধ্যে নিয়ে আসবো।”
যেহেতু রাজবাড়ী রেলের শহর এবং রেললাইন রাজবাড়ীকে দুটি অংশে বিভক্ত করেছে সেহেতু প্রধান সড়ক বাদেও কিছু লিংক রোড করার পরিকল্পনাও রয়েছে আমার।
তার পরিকল্পনার অংশ হিসাবে ইঞ্জিনিয়ার আমজাদ বলেন, রাজবাড়ী পৌর শহরটির সৌন্দর্যবর্ধন আমার অন্যতম একটি পরিকল্পনা। রাজবাড়ী শহরের প্রধান সড়কের ফুটপাত এবং আশেপাশের কিছু রাস্তা এবং সার্বিকভাবে রাজবাড়ী পৌর এলকার সৌন্দর্যবর্ধন এবং সবুজায়নের প্রতি আমার দৃষ্টি থাকবে। আমি নির্বাচিত হলে, রাজবাড়ীতে যে খেলার মাঠগুলা রয়েছে সেগুলোর সৌন্দর্যবর্ধনের দিকে আমি নজড় দিবো এবং সেই মাঠগুলোতে খেলার পরিবেশ ও সকাল বিকাল মানুষ যাতে সময় কাটাতে পারে সেদিকে বিশেষ খেয়াল থাকবে।

আমজাদ হোসেন আরো জানান, দেশনেত্রী শেখ হাসিনার নির্দেশ মাদকমুক্ত দেশ গড়া। তার এই নির্দেশ বাস্তবায়নে আমি আমার পৌর এলাকা তথা পুরো রাজবাড়ী জেলাকে মাদকমুক্ত রাখতে কাজ করবো।
আমজাদ হোসেন আরো বলেন প্রতিবছরই পদ্মার ভাঙ্গনের মুখে পড়ে রাজবাড়ী জেলা। সুষ্ঠু ব্যবস্থাপনার মাধ্যমে নদী শাসন করে পদ্মার পাড় বাধাই করে একটি বিনোদন কেন্দ্র করার পরিকল্পনা রয়েছে আমার।
এছাড়া রাজবাড়ী পৌরএলাকা বর্ধিত করে সেখানে একটি বিনোদন কেন্দ্র করার পরিকল্পনা রয়েছে আমার।”
আমজাদ হোসেন বলেন, রাজবাড়ী অনেক গুণী ও কৃতি ব্যাক্তিত্বের জন্মস্থান। বর্তমান প্রজন্মের অনেকেই তাদের সম্পর্কে অজ্ঞাত। আমার চেষ্টা থাকবে বিভিন্ন সড়ক,চত্বর তাদের নামে নামকরণের মধ্যে দিয়ে এদের সম্পর্কে বর্তমান প্রজন্মকে জানানো।
ইঞ্জিনিয়ার আমজাদ হোসেন পৌর কার্যালয়ের অভ্যন্তরীণ উন্নয়নের বিষয়ে বলেন, “রাজবাড়ী পৌরসভার দীর্ঘদিনের একটি সমস্যা হলো পৌর কর্মচারীদের বেতন ভাতা সঠিক সময়ে না পাওয়া। আমি নির্বাচিত হয়ে মেয়রের আসনে বসার প্রথমেই এই দিকটাতে নজর দিবো এবং এই সমস্যার সমাধান করবো।”

তিনি রাজবাড়ী টেলিগ্রাফকে বলেন, আমি সর্বশেষ এটি বলতে চাই জননেত্রী শেখ হাসিনা যদি আমাকে মনোনয়ন দেন এবং রাজবাড়ী পৌরবাসি যদি আমাকে নির্বাচিত করে আমি রাজবাড়ী পৌরসভাকে দেশের মধ্যে একটি মডেল পৌরসভা হিসাবে গড়ে তুলবো।”

Facebook Comments


এ জাতীয় আরো খবর