গোয়ালন্দ পৌর আ’লীগের সভাপতি নজরুল মন্ডলের বিরুদ্ধে চাঁদাবাজি অভিযোগের মামলা

নিউজ ডেস্ক | রাজবাড়ী টেলিগ্রাফ / ৫৬৪ বার পড়া হয়েছে
সর্বশেষ আপডেট : সোমবার, ২ নভেম্বর, ২০২০

সংবাদটি শেয়ার করুন
  • 273
    Shares

জহুরুল ইসলাম হালিম// রাজবাড়ীর গোয়ালন্দে দুই আওয়ামীলীগ নেতার বিরুদ্ধে ব্যবসায়ীর কাছ থেকে চাঁদাবাজির অভিযোগ পাওয়া গেছে। এ ঘটনায় ব্যবসায়ী শফিফুল ইসলাম বাদি হয়ে ০১ নভেম্বর সোমবার রাতে গোয়ালন্দ ঘাট থানায় দুই আওয়ামী লীগ নেতাসহ ৬ জনের নাম উল্লেখ করে এবং অজ্ঞাত ৬/৭ জনের বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করেছেন।

মামলার আসামীরা হচ্ছেন-গোয়ালন্দ পৌর আওয়ামী লীগের সভাপতি (ভারপ্রাপ্ত) নজরুল ইসলাম মন্ডল(৪২), গোয়ালন্দ পৌরসভার দেওয়ান পাড়া এলাকার মৃত আব্দুল মোল্লার ছেলে মোহাম্মাদ আলী মোল্লা(৪৫), দৌলতদিয়া ইউনিয়নের ২নং ওয়ার্ডের মজিদ শেখের পাড়ার বাবু মোল্লার ছেলে মাসুদ মোল্লা(২৫), ১নং ওয়ার্ডের ছাত্তার মেম্বার পাড়ার মৃত রশিদ খার ছেলে কাশেম আলী খা(৩৫), দৌলতদিয়া ইউনিয়নের ২নং ওয়ার্ডের মজিদ শেখের পাড়ার লঞ্চ ঘাট এলাকার আইয়ুব মন্ডলের ছেলে শাওন মন্ডল(২৮) এবং একই এলাকার মৃত জালাল মন্ডলের ছেলে মোস্তফা মন্ডল(৩৬)সহ অজ্ঞাত আরো ৬/৭ জন।

এজাহার সূত্রে জানা যায়, দৌলতদিয়া ৬নং ফেরি ঘাটের বিপরীত পাশে ব্যাক্তি মালীকানাধীন জমি লীজ নিয়ে কয়লা, পাথরসহ নির্মাণ সামগ্রী ব্যবসা শুরু করার উদ্যোগ নেন শফিকুল। এক মাস আগে সেখানে কাজ শুরু করলে অভিযুক্তরা তার কাছে ১ লক্ষ টাকা চাঁদা দাবি করেন। এক মাসের মধ্যে চাঁদার টাকা পরিশোধ না করলে মেরে ফেলার হুমকি ও ব্যবসা বন্ধ করে দেয়া হবে বলে জানান। গত ৩১ অক্টোবর বেলা ১১টার দিকে আসামীরা আগ্নেয়াস্ত্র ও দেশীয় অস্ত্রসস্ত্র নিয়ে চাঁদার টাকার দাবিতে একজনকে মারধর করে। তৎক্ষনাৎ তিনি তার মামাকে নিয়ে ঘটনাস্থলে আসেন। এসময় উল্লেখিত আসামীরা তাকে বলেন, চাঁদার টাকা পরিশোধ না করে কাজ করছিস কেন।’ এসময় তিনি চাঁদার টাকা দিতে অস্বীকার করলে নজরুল ইসলাম মন্ডল ও মোহাম্মদ আলী মোল্লা তাদের কাছে থাকা পিস্তল ঠেকিয়ে তার পকেটে থাকা ১০ হাজার টাকা ছিনিয়ে নেয় এবং অবশিষ্ট ৯০ হাজার টাকা ৭ দিনের মধ্যে পরিশোধ করতে বলেন। সেই সাথে তাকে ও তার মামাকে মারপিট করে আহত করে চলে যায়। এ অভিযোগের বিষয়ে জানার জন্য নজরুল ইসলাম মন্ডলের মুঠো ফোনে একাধিকবার যোগাযোগ করে তাকে পাওয়া যায় নাই।
গোয়ালন্দ ঘাট থানার পরিদর্শক (তদন্ত) ও দায়িত্বপ্রাপ্ত কর্মকর্তা আব্দুল্লাহ আল তায়াবীর জানান, মামলা তদন্ত শেষে আসামিদেরকে গ্রেপ্তারের চেষ্টা চলছে।

Facebook Comments


এ জাতীয় আরো খবর