দৌলতদিয়ায় বন্ধ হয়নি বিআইডাব্লিউটিসির‘বখরা বাণিজ্য’, ফেরিপারের অপেক্ষায় দীর্ঘ ট্রাকের সারি

নিউজ ডেস্ক | রাজবাড়ী টেলিগ্রাফ / ৮০ বার পড়া হয়েছে
সর্বশেষ আপডেট : শনিবার, ৩১ অক্টোবর, ২০২০

সংবাদটি শেয়ার করুন
  • 32
    Shares

জহুরুল ইসলাম হালিম // রাজবাড়ীর গোয়ালন্দের দৌলতদিয়া ঘাটে বিআইডাব্লিউটিসির ফেরির টিকিট কাউন্টারে ট্রাকচালকদের কাছ থেকে টিকিটমূল্যের অতিরিক্ত ভাড়া আদায় বন্ধ হয়নি। সেখানে ট্রাকপ্রতি সরকার নির্ধারিত ফেরিভাড়ার অতিরিক্ত টাকা আদায় করা হচ্ছে। এতে প্রতিদিন
মোটা অঙ্কের টাকা হাতিয়ে নিচ্ছে সংশ্লিষ্ট বিআইডাব্লিউটিসির লোকজন। বিষয়টি নিয়ে গত রবিবার (২৫ অক্টোবর) দৈনিক কালের কণ্ঠে ‘চা-পানের নামে বখরা মাসে ২৫ লাখ টাকা’ শিরোনামে একটি সচিত্র প্রতিবেদন প্রকাশ পায়। কিন্তু তাতেও টনক নড়েনি সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের। এদিকে শিমুলিয়া-কাঁঠালবাড়ী নৌপথ অচলাবস্থার প্রভাবে বিভিন্ন গাড়ির চাপ বেড়ে দৌলতদিয়া-পাটুরিয়া নৌপথে স্বাভাবিক ফেরিপারাপার ব্যাহত হচ্ছে। আজ শনিবার দৌলতদিয়া ঘাটে ফেরিপারের অপেক্ষায়
আটকা পড়ে যাত্রীবাহী বাস,পণ্যবাহী ট্রাকসহ ঢাকাগামী শত শত বিভিন্ন গাড়ি।

আজ শনিবার দুপুরে দৌলতদিয়া ঘাট সরেজমিন ঘুরে দেখা যায়, সেখানে টার্মিনালের বিশাল পার্কিং ইয়ার্ড খালি পড়ে আছে। অপরদিকে ফেরিঘাটের জিরো পয়েন্ট থেকে দৌলতদিয়া-খুলনা মহাসড়কের গোয়ালন্দে ক্যানেলঘাট পর্যন্ত তিন কিলোমিটার ফোরলেন রাস্তার একপাশে যাত্রীবাহী বাস ও পণ্যবাহী ট্রাকের দীর্ঘ সারি। কোথাও কোথাও দুই-তিন সারি সৃষ্টি হওয়ায় সেখানে যানজট লেগে আছে।

এদিকে ঘাটসংশ্লিষ্ট একাধিক সূত্রের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, শিমুলিয়া-কাঁঠালবাড়ী নৌপথ অচলাবস্থার প্রভাবে দৌলতদিয়া-পাটুরিয়া নৌপথে বিভিন্ন গাড়ির চাপ বেড়েছে। এতে স্বাভাবিক ফেরিপারাপার ব্যহত হওয়ায় দৌলতদিয়া ঘাটে শত শত গাড়ি আটকা পড়ে যানজট পরিস্থিতি সৃষ্টি হয়ে আছে।
ফেরিপারের অপেক্ষায় আটকে পড়া গাড়িগুলোর মধ্যে বিভিন্ন পণ্যবোঝাই ট্রাক ও কাভার্ড ভ্যানের সংখ্যা সবচেয়ে বেশি। মাত্র তিন কিলোমিটার দীর্ঘ ওই নৌপথ পাড়ি দিতে এসে ফেরিপারের অপেক্ষায় দিনের পর দিন সিরিয়ালে আটকে থাকায় সংশ্লিষ্ট ট্রাকের চালকরা চরম ভোগান্তির শিকার হচ্ছেন।

এদিকে কাউন্টারে ট্রাকচালকদের কাছ থেকে সরকার নির্ধারিত ফেরির টিকিটমূল্যের অতিরিক্ত ভাড়া আদায় করছে বিআইডাব্লিউটিসির লোকজন। দৌলতদিয়া-পাটুরিয়া নৌপথে ফেরিপারাপারে পাঁচ টনের একটি ট্রাকের টিকিটমূল্য এক হাজার ৬০ টাকা ও ছোট ট্রাকের ৭৪০টাকা। অথচ বিআইডাব্লিউটিসির ওই কাউন্টার থেকে বড় ট্রাকপ্রতি অতিরিক্ত ৪০ টাকা ও ছোট ট্রাকপ্রতি অতিরিক্ত ১৪০ টাকা করে ভাড়া আদায় করা হচ্ছে। যশোর থেকে ছেড়ে আসা গাজীপুরগামী প্লাস্টিকের কনটেইনার বোঝাই এক ট্রাকের চালক আজাহার পত্তনদার বলেন, শুক্রবার রাত ১২টা থেকে দৌলতদিয়া ঘাটে সিরিয়ালে আটকা পড়ে আছি। ওই রাতেই কাউন্টার থেকে ফেরির টিকিট কিনেছি। টিকিটের গায়ে এক হাজার চারশত ৬০ টাকা লেখা থাকলেও আমার কাছ থেকে দেড় হাজার টাকা নিয়েছে। অতিরিক্ত ৪০ টাকা না দিলে কাউন্টার থেকে টিকিট পাওয়া যাবে না। তাই বাধ্য হয়ে আমার মতো ট্রাকড্রাইভাররা এই ঘাটে এসে অতিরিক্ত টাকায় ফেরির টিকিট কিনছে।’ এদিকে বিআইডাব্লিউটিসির দেওয়া তথ্য মতে, দৌলতদিয়া ঘাট থেকে ঢাকামুখী যাত্রীবাহী বাস, প্রাইভেটকারসহ বিভিন্ন গাড়ির পাশাপাশি প্রতিদিন গড়ে এক হাজার ২০০টি বড় ট্রাক ও ২৫০টি ছোট ট্রাক ফেরি পার হয়। সেই হিসাবে পণ্যবাহী ছোট-বড় ট্রাকের ফেরি ভাড়ার টিকিট বিক্রি বাবদ প্রতিদিন গড়ে ৮৩ হাজার টাকা অতিরিক্ত আদায় করা হচ্ছে। ফলে প্রতি মাসে সেখানে সরকার নির্ধারিত ভাড়ার অতিরিক্ত ২৪ লাখ ৯০ হাজার টাকা হাতিয়ে নিচ্ছেন সংশ্লিষ্ট বিআইডাব্লিউটিসির লোকজন।
বিআইডাব্লিউটিসির দৌলতদিয়া ঘাট ব্যবস্থাপক (বণিজ্য) মো. আবু আব্দুল্লাহ রনি বলেন, ‘ফেরির টিকিট বিক্রিতে ট্রাকচালকদের কাছ থেকে অতিরিক্ত টাকা আদায়ের পাশাপাশি সকল অনিয়ম বন্ধেপ্রয়োজনীয় নির্দেশ দিয়েছি। এর পরেও কাউন্টারে কেউ যদি অতিরিক্ত টাকা আদায় করে, তার বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।’

Facebook Comments


এ জাতীয় আরো খবর