‘‘রাজবাড়ী টেলিগ্রাফ’’ রিপোর্টারের রক্তে বেঁচে গেলো সাদিয়ার প্রাণ

নিউজ ডেস্ক | রাজবাড়ী টেলিগ্রাফ / ৩৯৭ বার পড়া হয়েছে
সর্বশেষ আপডেট : রবিবার, ২৫ অক্টোবর, ২০২০

0Shares

নিউজ ডেস্ক// ‘‘রাজবাড়ী টেলিগ্রাফ’’ এর রিপোর্টার ফিরোজ আহম্মেদ রক্ত দিয়ে জীবন বাঁচালেন রাজবাড়ীর মিজানপুর ইউনিয়নের ৭নং ওয়ার্ড মেছো ঘাটার সাদিয়া আক্তার কে ।তার বাচ্চা নষ্ট হয়ে যাওয়াতে অনেক রক্তক্ষরণ হয়। রোগী ফরিদপুর হাসপাতালে ভর্তি।

২৪ অক্টোবর সকাল সাড়ে ১১টায় হঠাৎ ফোন আসে ‘‘রাজবাড়ী টেলিগ্রাফ’’ রিপোর্টার ফিরোজ এর এক ছোট ভাইয়ের ফোনে। ফোনের ওপাস থেকে বলা হয় আমরা ফরিদপুর থেকে ২ ব্যাগ রক্ত যোগার করেছি কিন্তু আরেক ব্যাগ এ (+) পজিটিভ রক্ত কোথাও পাচ্ছি না, দ্রুত রক্ত জোগার করতে না পারলে রোগীকে বাঁচানো হয়তো সম্ভব হবেনা। গোয়ালন্দ থেকে দ্রুত এ (+) পজিটিভ রক্ত জোগার করতে পারলে হয়তো বাঁচানো যাবে সাদিয়াকে।

এমতাবস্থায় অনেক খোঁজাখুঁজির পর যখন কোথাও রক্ত পাওয়া যাচ্ছিল না, ঠিক তখনই রক্ত দিতে এগিয়ে এলেন ‘‘রাজবাড়ী টেলিগ্রাফ’’এর রিপোর্টার ফিরোজ আহম্মেদ। তাকে বলা মাত্রই রক্ত দিতে রাজি হলেন। গোয়ালন্দ ব্লাড ডোনার ক্লাবের সহায়তায় দ্রুত নেয়া হলো গোয়ালন্দ ন্যাশনাল ডায়াগনস্টিক সেন্টারে এবং রক্ত সংগ্রহ করে দ্রুত পাঠানো হয় ফরিদপুরে।

প্রথম বারের মত রক্ত দেয়া ফিরোজের অনুভূতি যানতে চাইলে তিনি বলেন, আমি প্রথমে একটু ভয় পাচ্ছিলাম রক্ত দিতে কিন্তু যখন রক্ত নেওয়া শুরু করলো তখন ভয় কেটে যায়, রক্ত দেয়া অনেক সহজ। আমি এর পর যতবার সম্ভব রক্ত দান করবো ইনশাআল্লাহ। তিনি আরো বলেন,যারা এখনও রক্ত দিতে সাহস পাচ্ছেন না তারা একবার দিয়ে দেখেন সব ভয় কেটে যাবে।

রোগীর এক নিকট আত্মীয় বলেন, আমরা কোথাও রক্ত পাচ্ছিলাম না। ‘‘রাজবাড়ী টেলিগ্রাফ’’ এর রিপোর্টার ফিরোজ ভাই রক্ত না দিলে হয়তো আমাদের রোগীকে বাঁচানোই সম্ভব হতো না। তিনি আরো বলেন, যারা আমাকে রক্ত পেতে সাহায্য করেছেন এবং যিনি রক্ত দিয়েছেন আমি তাদের প্রতি কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করছি। আমি ‘‘রাজবাড়ী টেলিগ্রাফ’’এর রিপোর্টার ফিরোজ আহম্মেদ ভাইয়ের সুস্বাস্থ্য ও দীর্ঘায়ু কামনা করি এবং ভাইয়ের প্রতি কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করছি।

Facebook Comments


এ জাতীয় আরো খবর
NayaTest.jpg