শিরোনাম

গোয়ালন্দ পৌরসভার মেয়র প্রার্থী কি হবেন শেখ শালিমুজ্জামান হিরন

নিউজ ডেস্ক | রাজবাড়ী টেলিগ্রাফ / ৫৮১ বার পড়া হয়েছে
সর্বশেষ আপডেট : মঙ্গলবার, ২০ অক্টোবর, ২০২০

সংবাদটি শেয়ার করুন
  • 232
    Shares

আসন্ন রাজবাড়ী জেলার গোয়ালন্দ পৌরসভার মেয়র পদে আওয়ামী লীগের দলীয় মনোনয়ন প্রত্যাশী বিশিষ্ট সমাজসেবক ও রাজনৈতিক ব্যক্তিত্ব শেখ শালিমুজ্জামান হিরন। তিনি গোয়ালন্দ উপজেলা ছাত্রলীগের সাবেক সহ-সভাপতি ও উপজেলা যুবলীগের সিনিয়র সদস্য।

সে লক্ষ্য ও উদ্দেশ্যকে সামনে রেখেই সম্প্রতি তিনি এলাকায় জনসংযোগ , সামাজিক, সাংস্কৃতিক , রাজনৈতিক কার্যক্রম ও এলাকার উন্নয়নমূলক সকল কর্মকাণ্ডে নিয়মিত অংশগ্রহণ করছেন।

পরোপকারী ,দানশীল ও গোয়ালন্দ উপজেলা ছাত্রলীগের সাবেক সহ-সভাপতি ও একজন পরিচ্ছন্ন ইমেজের মানুষ হিসেবে পুরো উপজেলাতেই খুবই পরিচিত ও সকলের প্রিয় মানুষ তিনি। ফলে এলাকার এসব কর্মকান্ডে আগে থেকেই নিয়মিত অংশগ্রহণ করেন।

তিনি শত ব্যস্ততার মাঝেও কৃতিত্বের সাথে MBA ডিগ্রী অর্জন করেছেন সেই সাথে বিদেশী ভাষা শিক্ষার উপর” নর্থ সাউথ বিশ্ববিদ্যালয়” এবং জাপানিজ ভাষা শিক্ষার স্বনামধন্য প্রতিষ্ঠান “কোকোরজাশি” থেকে দীর্ঘ মেয়াদি কোর্স করেছেন।

এবার গোয়ালন্দ পৌরবাসী তাঁকে মেয়র নির্বাচিত করে পৌরসভার সকল জনসাধারণের সুখ-দুঃখের সাথী ও সার্বিক উন্নয়নের দায়িত্ব অর্পণ করতে চান।

গোয়ালন্দ পৌরসভার অনেক বাসিন্দাদের সাথেই কথা হয়েছে বিষয়টি নিয়ে। তারাও চান বিগত দিনের প্রতিনিধিত্বের পরিবর্তন ও নতুন মুখের আগমন হিসেবে পৌর মেয়র পদে আওয়ামীলীগের দলীয় মনোনয়ন পাবার যোগ্য তিনি। তিনি নির্বাচিত হয়ে মেয়র পদে আসীন হলে পৌর এলাকার সকল বাসিন্দাদের ভাগ্যবদলসহ পুরো পৌর এলাকার চিত্র পাল্টে যাবে বলেও তারা আশাবাদ ব্যক্ত করেন।

এপ্রসঙ্গে শালিমুজ্জামান হিরন “রাজবাড়ী টেলিগ্রাফ” কে দেয়া এক সাক্ষাৎকারে বলেন, আমি আওয়ামীলীগ পরিবারের সন্তান । আমার বাবা(মরহুম শেখ আব্দুল খালেক মিয়া) তিনি ছিলেন গোয়ালন্দ উপজেলা আওয়ামী লীগের প্রতিষ্ঠাকালীন কোষাধ্যক্ষ। আমার বড় ভাই (শেখ সামসুজ্জামান নয়ন) তিনি গোয়ালন্দ থানা শাখার ছাত্রলীগের আহ্বায়ক এবং পরবর্তিতে গোয়ালন্দ থানা শাখা যুবলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক ছিলেন। আমি গোয়ালন্দ উপজেলা যুবলীগের সদস্য এবং সর্বশেষ আমি ২০১৯ সালের গোয়ালন্দ উপজেলা আওয়ামী লীগের ত্রি-বার্ষিক সম্মেলনের সাধারণ সম্পাদক প্রার্থী ছিলাম।

জনগণের কল্যাণ ও অগ্রগতি সাধন রাষ্ট্রের দায়িত্ব ও কর্তব্য, সাধারণ মানুষের কল্যাণ ও মৌলিক অধিকার পূরণে সরকার সবসময়ই শতভাগ সচেতনতার পাশাপাশি প্রতিমুহূর্তেই তৎপর থাকে। মানুষের বেঁচে থাকা,বিশেষত নিরাপত্তার সাথে জীবনযাপনের নিশ্চয়তার দায়ভার অবশ্যই সরকারের। তাদের অধিকার রক্ষা এবং তা পূরণে ও জনগনকে সার্বিক সেবাদানের অঙ্গীকার নিয়েই বিভিন্ন রাজনৈতিক দল জনগণের ভোটে নির্বাচিত হয়ে সরকার গঠন করে থাকে। ফলে স্থানীয় সকল জনসাধারণের কল্যানে সরকারের করণীয় সকল দায়িত্বভার স্থানীয় জনপ্রতিনিধিদের উপরেই বর্তায়। ফলে প্রতিটি এলাকার সর্বক্ষেত্রে স্থানীয় জনপ্রতিনিধিদের কর্মকান্ডই সরকারকে ওই এলাকা সকল জনসাধারণের নিকট আস্থার সর্বোচ্চ চূড়ায় পৌঁছে দেয়।

আমি দীর্ঘ ২৮ বছর যাবৎ আওয়ামীলীগের একজন একনিষ্ঠ ও নিবেদিত কর্মী হিসবে গোয়ালন্দবাসীর পাশে থাকার চেষ্টা করেছি। এরই ধারাবাহিকতায় এবার আমি দলীয় মনোনয়ন নিয়ে মেয়র হয়ে পৌরবাসীদের জন্যে কিছু করতে চাই।

তবে মনোনয়নের বিষয়টি সম্পূর্ণ সংগঠনের নেতৃবৃন্দের সিদ্ধান্ত অনুযায়ী হবে, আমি অবশ্যই তাদের সিদ্ধান্তকে সাধুবাদ জানাবো এবং তাদের সিদ্ধান্ত মেনে নিতে বাধিত থাকিবো।

ফিরোজ আহমেদ
গোয়ালন্দ প্রতিনিধি

Facebook Comments


এ জাতীয় আরো খবর