শিরোনাম
এক ঘণ্টার জন্য গোয়ালন্দ উপজেলার ইউএনও হলেন বাবলী- শিবালয়ে নিষিদ্ধ সময়ে যমুনার চরে দিনব্যাপী ইলিশের হাট দৌলতদিয়ার যৌনপল্লিতে যৌনকর্মীর রক্তাক্ত লাশ উদ্ধার- গোয়ালন্দে কৃষকদের বাধা উপেক্ষা করে প্রভাবশালী মহল মরাপদ্মায় ড্রেজার দিয়ে অবাধে মাটি উত্তোলন করছে দৌলতদিয়া ইউনিয়ন যুবলীগ সাধারণ সম্পাদক বহিস্কার গোয়ালন্দে ছাত্রলীগ নেতাকে মারধরের অভিযোগে উপজেলা সেচ্ছাসেবক লীগ সভাপতি আটক- গোয়ালন্দে ৭০০ গ্রাম গাঁজাসহ দুই জন আটক গোয়ালন্দ প্রবাসী ফোরামের উদ্যোগে অসচ্ছল মেধাবী শিক্ষার্থীদের মাঝে শিক্ষাবৃত্তি প্রদান রাজবাড়ীতে শেখ হাসিনার নির্দেশে মুক্তিযোদ্ধাদের মাঝে সম্মানি বিতরণ অবৈধ ড্রেজার ব্যবসায়ীকে জরিমানা, ৭টি ড্রেজার জব্দ

প্রথম ম্যাচে রোমাঞ্চকর জয় পেলো নাজমুল একাদশ

নিউজ ডেস্ক | রাজবাড়ী টেলিগ্রাফ / ২৫০ বার পড়া হয়েছে
সর্বশেষ আপডেট : সোমবার, ১২ অক্টোবর, ২০২০

0Shares

বিসিবি প্রেসিডেন্ট কাপের উদ্বোধনী ম্যাচে মুখোমুখি হয় মাহমুদউল্লাহ একাদশ ও নাজমুল একাদশ। টসে জিতে বোলিং এর সিদ্ধান্ত নেন নাজমুল একাদশের কাপ্তান নাজমুল।

ব্যাটিং এ নেমে শুরু থেকেই খুব একটা সুবিধা করতে পারেনি মাহমুদউল্লাহর দল। দলীয় ২১ রানেই একে একে আউট হয়ে সাঁজ ঘরে ফিরে যান নাইম শেখ, লিটন দাস ও মুমিনুল হক। এরপর দলের রানের চাকার দায়িত্ব নেন কাপ্তান নিজেই,সাথে ছিলেন ইমরুল।দুজনে মিলে গড়ে তুলেন ৭৪ রানের জুটি। ব্যক্তিগত ৪০ রানেই বিদায় নেন ইমরুল। মাহমুদউল্লাহও অর্ধ-শতক হাকিয়ে ৫১ রান করে আউট হয়ে যায় । এর পর নাজমুল একাদশের অসাধারণ বোলিং তেমন কেউ মাঠে টিকে থাকতে পারেন নি। সাব্বির ২৫ বলে ২২ রান ও শেষে রাকিবুল ২২ বলে ১৫ রান করে ৪৮ তম ওভারেই সবকটি উইকেট হারিয়ে ফেলে মাহমুদউল্লাহ একাদশ। ইনিংস শেষে ৪৭.৩ ওভারে সংগ্রহ ১৯৬ রান।তাসকিন ১০ ওভারে ৩৭ রান দিয়ে ২ টি উইকেট নেন।

জয়ের জন্য প্রয়োজন ১৯৭ রান।টারগেট তেমন একটা বড় না হলেও পেসার এবাদত হোসেনের বোলিং ভেঙে দেয় নাজমুল একাদশের টপ অডার । দলীয় ৬০ রানের মধ্যে সাজঘরে ফিরে যান সাইফ হাসান, সৌম্য সরকার ও মুশফিকুর রহিম।এরপর কাপ্তান শান্ত ও আফিফ হোসেন মিলে জুটি গড়ার চেষ্টা করলে বাঁধা হয়ে দাঁড়ান মাহমুদউল্লাহ। তার জালে বন্দি পরেন আফিফ হোসেন। এরপর কাপ্তান শান্ত একাই দলের রান চালিয়ে যায় । তবে তিনিও (শান্ত) ২৯ বলে ২৮ রান করে রকিবুলের শিকার হয়ে ফিরে যান।দলের অবস্থা যখন শোচনীয় তখন তৌহিদ হৃদয় ও ইরফান সুক্কুর সাবধানী ব্যাটিং চালিয়ে যান।ষষ্ঠ উইকেটে দুইজনে গড়েন ১০৫ রানের অনবদ্য পার্টনারশিপ। মূলত তারাই দলকে জয়ের বন্দরে পৌঁছে দেয়।যদিও অর্ধ-শতক হাঁকিয়ে সাজঘরে ফিরে যায় হৃদয়। নাঈম হাসান ৪২তম ওভারের প্রথম বলে ছক্কা মেরে দলের জয় নিশ্চিত করেন। ৭৮ বলে ৫৬ রান করে অপরাজিত থাকেন ইরফান। ৪ উইকেটে জয় লাভ করে নাজমুল একাদশ।

স্কোর কার্ডঃ
মাহমুদউল্লাহ একাদশ : ১৯৬/১০ (৪৭.৩ ওভার)
মাহমুদউল্লাহ ৫১ , ইমরুল ৪০
তাসকিন ৩৭-২ ,আল-আমিন ৪০-২(১ মেডেন)

নাজমুল একাদশ : ১৯৭/৪ (৪১.১ ওভার)
ইরফান ৫৬* ,হৃদয় ৫২
এবাদত ৪৬-৩, মাহমুদউল্লাহ ২৭-১

(শিহাবুর রহমান তিমন)

Facebook Comments


এ জাতীয় আরো খবর
NayaTest.jpg