শিরোনাম
রাজবাড়ীতে নতুন করে ৩ জন করোনা আক্রান্ত , মোট মৃত্যু ২৪ জন ফ্রান্সে মহানবি হযরত মুহাম্মদ (স.)এর ব্যঙ্গ চিত্র প্রকাশের প্রতিবাদে রাজবাড়ীতে বিক্ষোভ মিছিল পাংশায় পদ্মা নদীতে জেলের জালে ধরা পড়ল ১৭ কেজি ওজনের বাগাড় মাছ মার্কিন নির্বাচনে আগাম ভোট দিয়েছেন ৮ কোটির বেশি মানুষ রাজবাড়ী – ভাঙ্গা রুটে মধুমতি এক্সপ্রেস আজ থেকে চলাচল শুরু আজ পবিত্র ঈদে মিলাদুন্নবী (সা.) সর্বাধিক অনলাইন ক্লাস গ্রহণ করায় রাজবাড়ীতে দশ জন শিক্ষককে সন্মাননা স্মারক প্রদান ফ্রান্সে মোহাম্মদ সা. এর ব্যঙ্গচিত্র প্রদর্শনের প্রতিবাদে রাজবাড়ীতে বিক্ষোভ সমাবেশ ফ্রান্সে ব্যঙ্গচিত্র প্রদর্শনের প্রতিবাদে গোয়ালন্দে বিক্ষোভ সমাবেশ রাজবাড়ীতে কোর্ট হাজতে আসামীর আত্মহত্যা

মেইড ইন বাংলাদেশ, জার্মানিতেও জয়জয়কার

সম্পাদকীয় | রাজবাড়ী টেলিগ্রাফ / ৭০ বার পড়া হয়েছে
সর্বশেষ আপডেট : সোমবার, ২৮ সেপ্টেম্বর, ২০২০

সংবাদটি শেয়ার করুন
  • 32
    Shares

জার্মানির এক বিখ্যাত ক্লথিং স্টোরে কাজ করতে গিয়ে আজকাল প্রায়ই আমার মোস্তফা সরোয়ার ফারুকীর বানানো সেই সিমেন্টের বিজ্ঞাপনের কথা মনে পড়ে। মাল্টিন্যাশনাল সেই দোকানের নব্বই ভাগ কাপড়ের লেবেলেই ঝলঝল করে লেখা- ‘মেড ইন বাংলাদেশ’। জার্মানি আসার কিছুদিন পর কোনো এক শপিংমলে হঠাৎ ‘মেইড ইন বাংলাদেশ’ লেখা দেখে আতকে উঠেছিলাম। অতি আবেগতাড়িত হয়ে তা নিয়ে ফেসবুকে স্ট্যাটাসও দিয়েছিলাম। ঘন্টার পর ঘন্টা মেড ইন বাংলাদেশ ট্যাগ নিয়ে কাজ করার পর এখনো সেই আবেগ একটুও কমেনি। ম্যানেজারকে দেখলেই ইচ্ছে করে ডেকে এনে একটা কাপড়ের লেবেল দেখিয়ে বলি- ”লুক, স্যার। উই আর প্রাউড।”
চোখের সামনে যখন শত শত ইউরোপিয়ানকে সেই মেড ইন বাংলাদেশ লেখা প্রোডাক্ট অবলীলায় কিনে নিয়ে যেতে দেখি বাংলাদেশী হিসাবে তখন নিজেকে কারর চেয়ে কম মনে হয় না।
তবে শুধু বাংলাদেশে তৈরি কাপড়ই যে সারাবিশ্ব দাপিয়ে বেড়াচ্ছে তা না। এই ক্লথিং স্টোরে আমার মতোই পার্ট-টাইম কাজ করা এক বিদেশি স্টুডেন্টের সাথে পরিচয়। ইংরেজি না জানা মানুষদের সাথে দূরত্ব বজায় রেখে আমি সবসময় আমার জার্মান ভাষার মুর্খটা লুকাই। আমার সেই কলিগের জার্মান স্কিল যতোটা ভালো ইংরেজি জ্ঞান ততোটাই দুর্বল। তবুও প্রথম থেকেই আমার সাথে তার কথা বলার অতি আগ্রহ দেখে বিস্মিতই হলাম। সাম ইংলিশ আর আইন বিসিয়েন জার্মান দিয়ে সে আমাকে যা বললো তা শুনে আমার চক্ষু চড়কগাছ। বাংলাদেশের এক মেয়ের সাথে ফেসবুকে তার তিন বছরের সম্পর্ক। সেই মেয়েকে বিয়ে করার মনস্থির করার পর থেকে এক বছর ধরে টাকা জমাচ্ছে সে। জার্মানিতে একজন স্টুডেন্টের লাইফ কতোটা সংগ্রামী হতে পারে তা আমার অজানা নয়। সেই মেয়েকে জার্মানিতে আনতে যে টাকার প্রয়োজন তার জন্য আরো তিন বছর কাজ করে তা জমাবে সে। আমাকে মেয়ের ছবি দেখিয়ে কেমন হবে তা জানতে চাইলো। আমার তখন সবই বুঝা হয়েছে শুধু একটা বিষয় ছাড়া। বাংলাদেশী সে মেয়ের তো জার্মান জানার কথা না। ছেলের যে ইংরেজি জ্ঞান, তাহলে তাদের মধ্যে কথা হয় কিভাবে। অবশ্য সুন্দর একটা সম্পর্কে ভাষা কতোটা অনাবশ্যক তা জানতে আমার ‘লাভ একচ্যুয়ালি’ দেখতে হয়নি। বার্লিন থেকে ডর্টমুন্ডের বাসে আমার পিছনের সিটে ছিল একজোড়া কাপল আর পাশের সিটে ছিলো আরেকজোড়া। আজীবন সিংগেলদের প্রতিনিধি আমি মাঝের সিটে একা বসে কানে হেডফোন গুজে এই প্রেমে ভরা পৃথিবী থেকে নির্বাসনে যাওয়ার চেষ্টা করলাম। পিছনের কাপলের উত্তপ্ত বাক্য বিনিময়ে তা আর পারলাম কই। ইউরোপে এসে নতুন কোনো ভাষা না শিখতে পারলেও পরিচিত হয়েছি পৃথিবীর প্রধান সব ভাষার সাউন্ডের সাথে। সেই ভাষা জ্ঞান থেকে বুঝলাম এরা অন্তত চারটি ভাষায় ঝগড়া করছে। জার্মান, ইংরেজি, স্প্যানিশ আর ইটালিয়ান। এই খুনসুটি কি তাদের পলিগ্লট হওয়ার প্র‍্যাকটিস কিনা তা অবশ্য বুঝতে পারলাম না। তবে পাশের সিটের কাপলরা যে ঝগড়া করছে না তা বুঝতে অসুবিধা হলো না।কারণ তাদের মুখে কোনো ভাষা নেই। মেয়েটি সত্যিকারের বধির কিনা তা জানিনা, তবে ছেলেটি কথা বলছিলো নিঃশব্দে দুহাত নেড়ে সাইন ল্যাংগুয়েজ দিয়ে। তাদের অসাধারণ বোঝাপড়া দেখে মনে মনে আবারো ভাবলাম- নীরবতাই এ পৃথিবীর একমাত্র ভাষা, বাকি সব ভাষাই অর্থহীন।
আমার কলিগ সেই ফরেন স্টুডেন্ট নিশ্চই আমার স্বদেশী মেয়ের সাথে ফেসবুকে সাইন ল্যাংগুয়েজে কথা বলেনি। জিজ্ঞেস করতেই সে বললো- এটা কোনো সমস্যা না। ফেসবুকে চ্যাট করার সময় বিভিন্ন ট্রান্সলেটর অ্যাপ দিয়ে সে জার্মান ল্যাংগুয়েজকে ট্রান্সলেট করে নেয়। তাছাড়া সে টুকটাক যা ইংরেজি জানে তা দিয়েও চলে। পৃথিবীর কোনো শক্তির কাছেই যেখানে ভালোবাসা পরাজয় মেনে নেয়নি, ভাষা তো সেখানে নস্যি।

বাংলাদেশি মেয়ে বিয়ে করলে কেমন হবে তা জিজ্ঞেস করায় তাকে আমি দামী একখানা টি-শার্টের লেবেল দেখিয়ে বললাম-” চালিয়ে যাও, বন্ধু। মেড ইন বাংলাদেশ মানেই অলওয়েজ টপ কোয়ালিটি। হোক সেটা বস্ত্র অথবা মানুষ।”


লেখক, এন এইচ আশিস খান,
শিক্ষার্থী, রুহর ইউনিভার্সিটি অব বুখোম, জার্মানি।

Facebook Comments


এ জাতীয় আরো খবর