শিরোনাম
সাদামাটা আয়োজনে রাজবাড়ীর কাত্যায়নী পূজা রাজবাড়ীতে ১১ মামলার আসামী মিথুন গ্রেফতার রাজবাড়ীতে নতুন করে ১২ জন করোনা আক্রান্ত , মোট মৃত্যু ২৬ জন ২৫টি পৌরসভা নির্বাচনের তফসিল ঘোষণা, ইভিএমে ভোট রাজবাড়ীতে প্রাইভেটকার চাপায় শিশুর মৃত্যু পাংশায় বীর মুক্তিযােদ্ধা ও জেলা কৃষকলীগের সভাপতির স্মরণ সভায় কাজী কেরামত আলী এম.পি কালুখালী উপজেলা আওয়ামীলীগের সভাপতির মায়ের ইন্তেকাল আওয়ামী যুবলীগের কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য মনোনীত হওয়ায় আরাফাত রামিম কে সংবর্ধনা ইমনের নতুন সিনেমা ‘বীরত্ব’-এর শুটিং হচ্ছে রাজবাড়ীতে শোষক নই, সেবক হতে চাই, গোয়ালন্দ পৌর ৩ নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর প্রার্থী লিয়াকত হোসাইন

সিলেটের ঐতিহাসিক কীন ব্রীজ ও আলী আমজাদের ঘড়ি

সম্পাদকীয় | রাজবাড়ী টেলিগ্রাফ / ৬৮ বার পড়া হয়েছে
সর্বশেষ আপডেট : মঙ্গলবার, ১ সেপ্টেম্বর, ২০২০

সংবাদটি শেয়ার করুন
  • 30
    Shares

সুরমা নদীর উপর অবস্থিত কীন ব্রিজ সিলেটের প্রবেশদ্বার হিসেবেই পরিচিত। এক সময় এ ব্রিজটি সিলেটেরই অন্য পরিচয় হয়ে উঠেছিলো। সময়ের পরিক্রমায় কীন ব্রিজের সে জৌলুস আর থাকলেও এটি এখনও সিলেটের ঐতিহ্য ও ইতিহাসের অংশ হয়ে সুরমার বুকে টিকে আছে। ১৯৩৬ সালে আসামের শিক্ষামন্ত্রী খান বাহাদুর আবদুল হামিদ এবং আসামের এক্সিকিউটিভ কাউন্সিলের সদস্য বাবু প্রমোদ চন্দ্র দত্তের উদ্যোগে ব্রিজটি তেরি হয়। ব্রিজটি উদ্বোধন করেন আসামের তৎকালীন গভর্নর মাইকেল কীন। তার নামেই ব্রিজের নামকরণ করা হয়। তবে ব্রিজটি সুরমা ব্রিজ নামেও ব্যাপক পরিচিত। স্টিলের তৈরী এই ব্রিজটি দৈর্ঘ্যে ৩৯৫ মিটার এবং প্রস্থে ৫.৫০ মিটার। তৎকালীন সময়ে ব্যয় হয়েছিল প্রায় ৫৬ লাখ টাকা

আলী আমজাদের ঘড়ি

কীন ব্রীজের পাশেই চাঁদনীঘাটে রয়েছে সিলেটের আরেক ঐতিহ্য আলী আমজাদের ঘড়ি। কীন ব্রিজ থেকে নীচের দিকে তাকালে, চাঁদনী ঘাটের কাছেই চোখে পড়ে আলী আমজাদের ঘড়ি। উনবিংশ শতকের একটি স্থাপনা, যা মূলত একটি বিরাটাকায় ঘড়ি, একটি ঘরের চূড়ায় স্থাপিত।

ঘড়িটি নির্মিত হয় ১৮৭৪ সালে। সে সময় তৎকালীন বড়লাট লর্ড নর্থ ব্রুক সিলেট সফরে এলে তার সম্মানে এ ঘড়ি নির্মাণ করা হয় আলী আমজাদের জমিদারীর তহবিলের অর্থ থেকে। তাই এ ঘড়িটি আলী আমজাদের ঘড়ি হিসেবেই পরিচিত। ঘড়ির ডায়ামিটার আড়াই ফুট এবং ঘড়ির কাঁটা দুই ফুট লম্বা। এ অঞ্চলে যখন ঘড়ির অবাধ প্রচলন ছিল না, মানুষ সূর্যের দিকে তাকিয়ে সময় আন্দাজ করতো, ঠিক সে সময় এ ঐতিহাসিক ঘড়িঘরটি নির্মিত হয়। সে আমলে মানুষজন শহরের প্রবেশপথে স্থাপিত ঘড়িঘরের সময় দেখে শহরে আসা-যাওয়া ও কাজকর্ম সম্পাদন করতেন। লোহার খুঁটির ওপর ঢেউটিন দিয়ে সুউচ্চ গম্বুজ আকৃতির এ মনোরম স্থাপত্যশৈলীর পরিচায়ক ঘড়িঘরটি তখন থেকেই আলী আমজাদের ঘড়িঘর নামে পরিচিতি লাভ করে। বিরাট আকারের ডায়াল ও কাঁটা সংযুক্ত সুবিশাল ঘড়িটির ঘণ্টাধ্বনি শহরের বাইরে অনেকদূর থেকেও শোনা যেত। মুক্তিযুদ্ধ চলাকালীন হানাদার বাহিনীর গোলার আঘাতে এই প্রাচীন ঘড়িঘর বিধ্বস্ত হয়। স্বাধীনতার পর সিলেট পৌরসভা ঘড়িটি মেরামতের মাধ্যমে সচল করলেও কিছুদিনের মধ্যেই ঘড়ির কাঁটা বন্ধ হয়ে যায়। ১৯৮৭ খ্রিস্টাব্দে আলী আমজদের ঘড়ি মেরামত করে পুনরায় চালু করা হয়। এসময় ঘড়িটি চালু করার পর ঢাকার একটি কোম্পানীর কারিগররা ঘড়িটি চালু রাখার জন্য রিমোট কন্ট্রোলের ব্যবস্থা করে দেয়। পৌর চেয়ারম্যানের অফিসকক্ষ থেকে রিমোট কন্ট্রোলের মাধ্যমে ঘড়ির কাঁটা ঘুরতো। কিন্তু দুই-চার বছর যেতে না যেতেই ঘড়ির কাঁটা আবার বন্ধ হয়ে যায়। এরপর সিজান কোম্পানীর দ্বারা ইলেক্ট্রনিক পদ্ধতিতে ঘড়িটি পূনরায় চালু করা হয়। কিন্তু বছর না ঘুরতেই ঘড়িটির কাঁটা আবারও বন্ধ হয়ে যায়। ২০১১ খ্রিস্টাব্দে সিলেট সিটি কর্পোরেশন এই ঘড়িটিকে পূণরায় মেরামত করলে তা আবার দৈনিক ২৪ ঘন্টাব্যাপী সচল রয়েছে।

লেখক, আহমেদ প্রান্ত

 

অবস্থান: সিলেট সার্কিট হাউজ ও ক্বিন ব্রীজ সংলগ্ন।যোগাযোগ ব্যবস্থা: সিলেট রেলওয়ে স্টেশন অথবা কদমতলী কেন্দ্রীয় বাস টার্মিনাল হতে ১ কিলোমিটার উত্তর-পশ্চিম দিকে গেলেই ঐতিহাসিক আলী আমজাদ ঘড়িটির অবস্থান।

ঘড়ি ঘরের পরিমাপ নিম্নরূপ: দৈর্ঘ্য: ৯ ফুট ৮ ইঞ্চি প্রস্থ: ৮ ফুট ১০ ইঞ্চি নীচ থেকে ছাদ পর্যন্ত উচ্চতা: ১৩ ফুট ছাদ থেকে ঘড়ি অংশের উচ্চতা: ৭ ফুট ঘড়ির উপরের অংশের উচ্চতা: ৬ ফুট মোট উচ্চতা: ২৬ ফুট।

লেখক, আহমেদ প্রান্ত
ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক শিক্ষার্থী,
সাবেক সাব- এডিটর (দৈনিক যায়যায়দিন)

Facebook Comments


এ জাতীয় আরো খবর