শিরোনাম
দৌলতদিয়া ইউনিয়ন যুবলীগ সাধারণ সম্পাদক বহিস্কার গোয়ালন্দে ছাত্রলীগ নেতাকে মারধরের অভিযোগে উপজেলা সেচ্ছাসেবক লীগ সভাপতি আটক- গোয়ালন্দে ৭০০ গ্রাম গাঁজাসহ দুই জন আটক গোয়ালন্দ প্রবাসী ফোরামের উদ্যোগে অসচ্ছল মেধাবী শিক্ষার্থীদের মাঝে শিক্ষাবৃত্তি প্রদান রাজবাড়ীতে শেখ হাসিনার নির্দেশে মুক্তিযোদ্ধাদের মাঝে সম্মানি বিতরণ অবৈধ ড্রেজার ব্যবসায়ীকে জরিমানা, ৭টি ড্রেজার জব্দ গোয়ালন্দে অসহায় মানুষের মাঝে খাবার বিতরণ এমপি কন্যা চৈতীর উদ্যোগে জাঁকজমকপূর্ণ আয়োজনের মাধ্যমে শেষ হলো রাজবাড়ী সার্কেল আয়োজিত ইসলামিক কুইজ প্রতিযোগিতা ২০২১ করোনা ভাইরাস থেকে পরিত্রাণের জন্য রাজবাড়ী সার্কেলের বিশেষ দোয়া মাহফিল গোয়ালন্দে প্রধানমন্ত্রীর ঈদ উপহার নতুন পোশাক পেল সুবিধাবঞ্চিত শিশুরা

বগুড়া পুলিশের মানবিকতায় মাদক ব্যবসায়ী হাফিজুর এখন মুদি দোকানী

সুজন বিষ্ণু | নিজস্ব প্রতিবেদক / ১৫৭ বার পড়া হয়েছে
সর্বশেষ আপডেট : বৃহস্পতিবার, ২৭ আগস্ট, ২০২০

0Shares

মানবিক পুলিশ অফিসার বগুড়া জেলার দুপচাঁচিয়া থানার সহকারী উপ-পরিদর্শক হাফিজুর রহমানের মানবতা এবং প্রচেষ্টায় একজন মাদক ব্যাবসায়ী এখন সমাজের সৎ ব্যবসায়ী। সিনেমা নয় বাস্তবেই ঘটেছে এমন ঘটনা বগুড়া জেলার দুপচাঁচিয়া উপজেলায়।ঘটনাটি বগুড়ার দুপচাঁচিয়া উপজেলার বেড়াগ্রাম বাজারের মৃত তাছির মন্ডলের ছেলে বাবলু মন্ডল, মাদক জগতের কালো নাম বনো বাবু। রাত দিন যার কর্ম ছিলো মাদক সেবন ও বিক্রয়। পুলিশের তাড়ায় ঘর ছেড়ে পালিয়ে থাকা, আবার কখনো জেলে। তবুও দমিয়ে রাখতে পারতো না কেউ। একাধিক মামলা ভার কাঁধে নিয়ে দীর্ঘদিন পুলিশের চোখ ফাঁকি দিয়েও কোন লাভ না হওয়ায় অবশেষে পুলিশ অফিসারের ভালবাসায় ও সার্বিক সহযোগিতায় স্বাভাবিক জীবনের ফিরতে মাদককারবারী ছেড়ে মুদি দোকানী হয়েছেন তিনি। বনো বাবু বলেন, আমি খারাপ বন্ধুদের সাথে সঙ্গ দিয়ে প্রথমে মাদক সেবন এবং ব্যবসার সাথে জড়িত হয়েছি।

বিগত জীবনে ভুল করেছি । মাদক আমার পুরো পরিবার ধ্বংস করে দিয়েছে। আমার স্কুল পড়–য়া ছেলে মেয়ের নিষেধ অন্যদিকে থানার হাফিজ স্যারের ভালবাসায় আমি আমার জীবনে আলোর সন্ধান পেয়েছি। কর্ম হিসেবে অনেক কিছু ভেবেও কোন কাজ কর্ম না পাওয়ায় হাফিজ স্যার আমাকে তার ব্যক্তিগত উদ্যোগে বেড়াগ্রাম বাজারে এই মুদির দোকান ও দোকানের মালামালের ব্যবস্থা করে দেন। প্রতিদিন এই দোকান থেকে আড়াইশত টাকা থেকে তিনশত টাকা লাভ হয়, যেটা দিয়ে আমি আমার স্কুল পড়–য়া ছেলেমেয়ের লেখাপড়ার খরচ সহ সংসার চালাই। প্রতিদিন পাঁচ ওয়াক্ত নামাজ আর আমার এই ছোট মুদির দোকান নিয়ে আমি ব্যস্ত থাকতে চাই। তবে তিনি অন্য মাদক সেবক ও কারবারীদের আলোর পথে এসে শান্তিপূর্ন ভাবে জীবন যাপন করার জন্য অনুরোধ করেছেন।

দুপচাঁচিয়া থানার সহকারী উপ-পরিদর্শক হাফিজুর রহমান বলেন, আমি শুধুমাত্র আমার দায়িত্ব পালন করেছি, আমি মনে করি বাংলাদেশ পুলিশ মানুষের কল্যানে প্রতিজ্ঞাবদ্ধ। পুলিশ ডিপার্টমেন্টের আদর্শ বুকে ধারণ করে মানুষকে আলোর পথ দেখাবো এটাই আমার প্রত্যাশা। দুপচাঁচিয়া থানার অফিসার ইনচার্জ মিজানুর রহমান বলেন, হাফিজুর রহমান যে ভালো কাজটি করেছে তা অবশ্যই প্রশংসিত, তবে বনো বাবুর মতো যে কোন মাদক সেবনকারী ও মাদককারবারীকে স্বাভাবিক জীবনে ফেরাতে আমরা থানা পুলিশের পক্ষথেকে সার্বিক সহযোগিতা করে যাচ্ছি। আইন মান্যকারীদের ধরতে এবং আইনের আওতায় আনতে দুপচাঁচিয়া থানা পুলিশ সর্বদা প্রস্তুত রয়েছে।

Facebook Comments


এ জাতীয় আরো খবর
NayaTest.jpg