শিরোনাম
আজ বিশ্ব শিশু অধিকার দিবস জেলা কোর কমিটির সাথে ফরিদপুর সদর উপজেলার গণ্যমান্য ব্যাক্তিবর্গের মতবিনিময় সভা অনুষ্ঠিত রাজবাড়ীতে চাঁদাবাজি মামলায় জামিনে এসে সাংবাদিকের উপর হামলা ও হত্যার চেষ্টা গোয়ালন্দে ডায়াগনস্টিক সেন্টারে অভিযান ইভটিজিংয়ের অভিযোগে সাংবাদিককে গণপিটুনি দিয়ে পুলিশে সোপর্দ রাজবাড়ী জেলার শ্রেষ্ঠ অফিসার ইনচার্জ হলেন গোয়ালন্দঘাট থানার ওসি স্বপন কুমার মজুমদার শিক্ষক সংকটে গোয়ালন্দে দুটি সরকারি উচ্চ বিদ্যালয় সাংবাদিক পরিচয়ে চাঁদা দাবি, আটক ২ কাল থেকে লাগাতার চলবে মাঠের খেলা: মমতাজ রাজবাড়ীতে খাদ্য সহায়তা ও ক্রাচ বিতরণ করেছে মানবিক সংগঠন এক কাপ চা

ইভটিজিংয়ের অভিযোগে সাংবাদিককে গণপিটুনি দিয়ে পুলিশে সোপর্দ

ষ্টাফ রিপোর্টার | রাজবাড়ী টেলিগ্রাফ / ১৩৯ বার পড়া হয়েছে
সর্বশেষ আপডেট : সোমবার, ১৮ সেপ্টেম্বর, ২০২৩

0Shares

মানিকগঞ্জ প্রতিনিধি :

মানিকগঞ্জ সদরে বিবাহিত এক নারীকে ইভটিজিংয়ের (উত্ত্যক্ত) অভিযোগে দেওয়ান আবুল বাসার (৩৪) নামের এক কথিত সাংবাকিদকে আটক করা হয়েছে।

সোমবার বিকেলে সদর উপজেলার বান্দুটিয়া এলাকায় এ ঘটনা ঘটে।

ইভটিজিংয়ের শিকার ওই নারী এক সন্তানের জননী। তিনি মানিকগঞ্জের একটি রেসরকারি ক্লিনিকে চাকুরি করেন।

আটককৃত দেওয়ান আবুল বাশার সিরাজগঞ্জের চৌহালী উপজেলার বিনানুই এলাকার আইয়ুব আলী মাস্টারের ছেলে। তিনি একটি জাতীয় পত্রিকায় সাংবাদিকতার পাশাপাশি একটি মসজিদে ইমামতি করতেন।

পুলিশ জানায়, দীর্ঘদিন ধরে বিবাহিত ওই নারীকে ইভটিজিং (উত্ত্যক্ত) করে আসছিল কথিত সাংবাদিক দেওয়ান আবুল বাশার। এ ঘটনায় গত ১৬ সেপ্টেম্বর থানায় লিখিত অভিযোগ করেন ভুক্তভোগী ওই নারী। অভিযোগের পর কয়েকদিন চুপচাপ থাকলেও সোমবার দুপুরে ওই নারীর বাড়িতে যায় এবং ওই নারীর বাড়িতে গিয়ে ওই নারী ও তার পরিবারকে হুমকি-ধামকি দিয়ে অসৌজন্যমূলক আচরণ করেন দেওয়ান আবুল বাশার। এসময় ওই নারী চিৎকার করলে আশপাশের লোকজন এগিয়ে এসে দেওয়ান আবুল বাশারকে ধরে গণপিটুনি দিয়ে বেধে রেখে পুলিশকে খবর দেয়।

ভুক্তভোগী ওই নারী জানান, দীর্ঘদিন ধরে রাস্তাঘাটে ইভটিজিং এবং কু-প্রস্তাব (অনৈতিক) দিয়ে আসছিল মসজিদের ইমাম দেওয়ান আবুল বাশার। গত ১৪ সেপ্টেম্বর সন্ধা্য় বাড়ি ফেরার পথে মানিকগঞ্জ সরকারি বালক উচ্চ বিদ্যালয়ের খেলার মাঠের পাশে কু-প্রস্তাব দেন দেওয়ান আবুল বাশার। কু-প্রস্তাবে রাজি না হওয়ায় টানা হেচরা করেন। এসময় চিৎকার করলে আশপাশের লোকজন এগিয়ে আসলে দেওয়ান আবুল বাশার পালিয়ে যায়। পরে বিষয়টি পরিবারের লোকজনকে জানালে, পরিবারের লেকজন থানা পুলিশকে জানান।

মানিকগঞ্জ সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আব্দুর রউফ সরকার জানান, খবর পেয়ে আহত অবস্থায় কথিত সাংবাদিককে উদ্ধার করে পুলিশ হেফাজতে মানিকগঞ্জ সদর হাসপাতালে চিকিৎসা দেওয়া হচ্ছে। এ ঘটনায় সদর থানায় একটি মামলার প্রস্তুতি চলছে। মামলার পর কথিত সাংবাদিককে গ্রেফতার দেখানো হবে।

Facebook Comments


এ জাতীয় আরো খবর
NayaTest.jpg