শিরোনাম
দৌলতদিয়া মডেল স্কুলের ছাত্রী লিমা হত্যার বিচারের দাবিতে রাজবাড়ীতে মানববন্ধন শেষ হলো অভিশপ্ত দিন সপরিবারে করোনামুক্ত হয়ে হাসপাতাল ছেড়েছেন মেয়র আতিকুল ইসলাম মশক নিধনে নতুন প্রযুক্তি ব্যবহারের শুভ উদ্বোধন করলো ডিএনসিসি দৌলতদিয়া যৌনপল্লীতে চাঁদাবাজীর অভিযোগে গ্রেফতার-২ রাজবাড়ীর বাগমারা থেকে জৌকুড়া ঘাট মহাসড়কের কাজ দ্রুত সম্পন্ন করার দাবীতে মানববন্ধন রাজবাড়ীতে নতুন করে ৯ জন করোনা আক্রান্ত , মোট মৃত্যু ২৪ জন পদ্মায় ইলিশ ধরার দায়ে রাজবাড়ীতে ১১ জেলের কারাদণ্ড রাজবাড়ীতে আগামীকাল ফ্রান্সের বিরুদ্ধে বিক্ষোভের ডাক দিয়েছেন ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশ নিষেধাজ্ঞা শেষ আজ কাল থেকে ‘মুক্ত’ সাকিব

ফরিদপুরের ‘সোজন বাদিয়ার ঘাট ‘ অমর প্রেমের তীর্থস্থান

রাজবাড়ী টেলিগ্রাফ ডেস্ক / ১৫৩ বার পড়া হয়েছে
সর্বশেষ আপডেট : বুধবার, ৫ আগস্ট, ২০২০

সংবাদটি শেয়ার করুন

গাজী সাইফুল ইসলাম।।

পল্লী কবি জসীম উদদীনের অমর কাব্যেপন্যাস ” সোজন বাদিয়ার ঘাট” যে জায়গায় ও কাহিনী কে কেন্দ্র করে রচিত করেছিলেন তা হলো ফরিদপুর জেলায় বর্তমানে আরিফ বাজারের দক্ষিণ পাশে কুমার নদীর একটি ঘাট।

গ্রামীণ জীবনের লোককাহিনী ও গল্প গাঁথা অবলম্বন করে পল্লীকবি ১৯৩৪ সালে  সোজন বাদিয়ার ঘাট নামের যে কাব্যেপন্যাস লিখেছেন তার মূল কাহিনী তুলে ধরা হলো।

গড়াই নদীর প্রশাখা ফরিদপুর কুমার নদী ধারেই ছবির মতোই সুন্দর শিমুলতলী গ্রাম। এ গ্রামে হিন্দু ও মুসলমানের দীর্ঘদিনের বসবাস। সৌজন্য ও সম্প্রীতি তাদের জীবন বহমান। গ্রামের গদাই নমুর মেয়ে দুলী ও ছমির শেখের ছেলে সোজন ছেলেবেলার খেলার সাথী। সারা পাড়াময় তাদের কৈশোরের লীলাস্থল। কবে কখন যে তাদের শরীর মনে যৌবনের গেরস্থালী শুরু হয় তা তারা জানে না। মহরমের উৎসবকে কেন্দ্র করে শুরু হয় হিন্দু মুসলিম সংঘাত। ধীরে ধীরে শিমুলতলী মুসলিম শূন্য হয়। দুলীর বিয়ে ঠিক করে তার বাবা অন্য ছেলের সাথে। কিন্তু দুলী বিয়ের আসর থেকে পালিয়ে সোজনের সাথে ঘর বাঁধে গড়াই নদীর তীরে। অপহরণের মামলা হয় সোজনের নামে।

(সোজন বাদিয়ার ঘাটের তথ্য ও উপাত্ত সংগ্রহ করছেন লেখক)

মামলার রায়ে সোজনের সাত বছরের জেল হয়। দুলীকে এনে বিয়ে দেয় ধনাঢ্য কালাচাঁদের সাথে। জেল থেকে ছাড়া পেয়ে সোজন ঘরে না ফেরে যাযাবরের মতো দুলীর খোঁজে বেদের নৌকায় দেশে দেশে ফেরে। হঠাৎ সোজন দুলীকে খুঁজে পায়। দুলী তার সাথে রূঢ় আচরণ করে। ফলে সে জ্বালা মিটাতে বিষের বড়ি খেয়ে গভীর রাতে নদীর ঘাটে বাঁশীর সুর তোলে। দুলী বাঁশীর সুর শুনে পাগল হয়ে ছুটে আসে। একদিকে স্বামী কালাচাঁদের বিশ্বাসের মূল্য, অন্যদিকে সোজনের ভালবাসার টান। উভয় সংকটে পড়ে সে। ফলে সোজনের মত সেও আত্মহননের পথ বেছে নেয়।

( লেখক, সম্পাদক ও প্রকাশক, রাজবাড়ী টেলিগ্রাফ “)

Facebook Comments


এ জাতীয় আরো খবর