শিরোনাম
গোয়ালন্দ প্রবাসী ফোরামের উদ্যোগে অসচ্ছল মেধাবী শিক্ষার্থীদের মাঝে শিক্ষাবৃত্তি প্রদান রাজবাড়ীতে শেখ হাসিনার নির্দেশে মুক্তিযোদ্ধাদের মাঝে সম্মানি বিতরণ অবৈধ ড্রেজার ব্যবসায়ীকে জরিমানা, ৭টি ড্রেজার জব্দ গোয়ালন্দে অসহায় মানুষের মাঝে খাবার বিতরণ এমপি কন্যা চৈতীর উদ্যোগে জাঁকজমকপূর্ণ আয়োজনের মাধ্যমে শেষ হলো রাজবাড়ী সার্কেল আয়োজিত ইসলামিক কুইজ প্রতিযোগিতা ২০২১ করোনা ভাইরাস থেকে পরিত্রাণের জন্য রাজবাড়ী সার্কেলের বিশেষ দোয়া মাহফিল গোয়ালন্দে প্রধানমন্ত্রীর ঈদ উপহার নতুন পোশাক পেল সুবিধাবঞ্চিত শিশুরা দৌলতদিয়ায় হেরোইনসহ ৩ জন আটক রাজবাড়ী জেলা প্রশাসনের উদ্যোগে ভ্রাম্যমান আদালতে ব্যবসায়ীসহ ৫জনকে অর্থ জরিমানা পশ্চিম আকাশে চাঁদ দেখা গিয়াছে, আগামীকাল থেকে রোজা শুরু 

ফরিদপুরের ‘সোজন বাদিয়ার ঘাট ‘ অমর প্রেমের তীর্থস্থান

রাজবাড়ী টেলিগ্রাফ ডেস্ক / ৫২৬ বার পড়া হয়েছে
সর্বশেষ আপডেট : বুধবার, ৫ আগস্ট, ২০২০

0Shares

গাজী সাইফুল ইসলাম।।

পল্লী কবি জসীম উদদীনের অমর কাব্যেপন্যাস ” সোজন বাদিয়ার ঘাট” যে জায়গায় ও কাহিনী কে কেন্দ্র করে রচিত করেছিলেন তা হলো ফরিদপুর জেলায় বর্তমানে আরিফ বাজারের দক্ষিণ পাশে কুমার নদীর একটি ঘাট।

গ্রামীণ জীবনের লোককাহিনী ও গল্প গাঁথা অবলম্বন করে পল্লীকবি ১৯৩৪ সালে  সোজন বাদিয়ার ঘাট নামের যে কাব্যেপন্যাস লিখেছেন তার মূল কাহিনী তুলে ধরা হলো।

গড়াই নদীর প্রশাখা ফরিদপুর কুমার নদী ধারেই ছবির মতোই সুন্দর শিমুলতলী গ্রাম। এ গ্রামে হিন্দু ও মুসলমানের দীর্ঘদিনের বসবাস। সৌজন্য ও সম্প্রীতি তাদের জীবন বহমান। গ্রামের গদাই নমুর মেয়ে দুলী ও ছমির শেখের ছেলে সোজন ছেলেবেলার খেলার সাথী। সারা পাড়াময় তাদের কৈশোরের লীলাস্থল। কবে কখন যে তাদের শরীর মনে যৌবনের গেরস্থালী শুরু হয় তা তারা জানে না। মহরমের উৎসবকে কেন্দ্র করে শুরু হয় হিন্দু মুসলিম সংঘাত। ধীরে ধীরে শিমুলতলী মুসলিম শূন্য হয়। দুলীর বিয়ে ঠিক করে তার বাবা অন্য ছেলের সাথে। কিন্তু দুলী বিয়ের আসর থেকে পালিয়ে সোজনের সাথে ঘর বাঁধে গড়াই নদীর তীরে। অপহরণের মামলা হয় সোজনের নামে।

(সোজন বাদিয়ার ঘাটের তথ্য ও উপাত্ত সংগ্রহ করছেন লেখক)

মামলার রায়ে সোজনের সাত বছরের জেল হয়। দুলীকে এনে বিয়ে দেয় ধনাঢ্য কালাচাঁদের সাথে। জেল থেকে ছাড়া পেয়ে সোজন ঘরে না ফেরে যাযাবরের মতো দুলীর খোঁজে বেদের নৌকায় দেশে দেশে ফেরে। হঠাৎ সোজন দুলীকে খুঁজে পায়। দুলী তার সাথে রূঢ় আচরণ করে। ফলে সে জ্বালা মিটাতে বিষের বড়ি খেয়ে গভীর রাতে নদীর ঘাটে বাঁশীর সুর তোলে। দুলী বাঁশীর সুর শুনে পাগল হয়ে ছুটে আসে। একদিকে স্বামী কালাচাঁদের বিশ্বাসের মূল্য, অন্যদিকে সোজনের ভালবাসার টান। উভয় সংকটে পড়ে সে। ফলে সোজনের মত সেও আত্মহননের পথ বেছে নেয়।

( লেখক, সম্পাদক ও প্রকাশক, রাজবাড়ী টেলিগ্রাফ “)

Facebook Comments


এ জাতীয় আরো খবর
NayaTest.jpg